জেলা 

সন্দেশখালিতে ধরপাকড় চলছে! শনিবার গ্রেফতার তৃণমূল নেতা রবিবার গ্রেফতার বিজেপি ও সিপিএম নেতা, জনরোষ কী ঠেকানো যাবে!

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : তৃণমূল নেতা উত্তম সরদারের গ্রেফতারের পরেই রবিবার সকালে গ্রেফতার করা হয় বিজেপি নেতা বিকাশ সিংহকে। এর কয়েক ঘন্টা পরেই সন্দেশখালীরতে অশান্তির প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে আটক করা হয়েছে ওই এলাকার প্রাক্তন বিধায়ক নিরাপদ সরদারকে।সূত্রের খবর, রবিবার সিপিএমের প্রাক্তন বিধায়ককে থানায় নিয়ে গিয়েছে পুলিশ। তবে সিপিএমের একটি সূত্র বলছে, নিরাপদকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সন্দেশখালির প্রাক্তন বিধায়ক নিরাপদ সর্দার-সহ ১১৭ জনের নামে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছিল। উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের সদস্য শিবপ্রসাদ ওরফে শিবু হাজরাকে খুনের চেষ্টা, উস্কানি দেওয়া, বেআইনি জমায়েত করে অপরাধ সংগঠিত করা, বাড়ি বাড়ি গিয়ে মহিলাদের বিক্ষোভে অংশ নিতে বলা, অশান্তি সৃষ্টিতে প্ররোচনা দেওয়া এবং সর্বোপরি বিক্ষোভ করে পুলিশকে হেনস্থা করার অভিযোগ ওঠে তাঁদের বিরুদ্ধে।

Advertisement

অন্য দিকে, শনিবারই গ্রেফতার হয়েছেন সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা উত্তম সর্দার। পাশাপাশি গত কয়েক দিন ধরে সন্দেশখালিতে যে অশান্তির ঘটনা ঘটেছে, তাতে প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে পাকড়াও হন বিকাশ সিংহ নামে এক বিজেপি নেতা। বিকাশ ছিলেন বসিরহাট বিজেপি সাংগঠনিক জেলার প্রাক্তন সভাপতি। বর্তমানে তিনি বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপির পর্যবেক্ষক। স্থানীয় সূত্রে খবর, সন্দেশখালি থানার সামনেই তাঁর বাড়ি।

বস্তুত, তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহান, উত্তম সর্দার এবং শিবু হাজরার বিরুদ্ধে এলাকায় ‘অত্যাচার’-এর অভিযোগ তুলেছেন গ্রামবাসীরা। দাবি তুলেছেন, ওই তৃণমূল নেতাদের গ্রেফতারির। শনিবার বিক্ষোভে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন মহিলারা। বাঁশ, কাটারি, দা, হাতা, খুন্তি, লাঠি নিয়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন সন্দেশখালিতে। আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে এক পোলট্রি ফার্মে। বাদ যায়নি তৃণমূল নেতার বাগানবাড়িও। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, তাঁদের জমি জোর করে দখল করে ওই ফার্ম তৈরি করেছেন তৃণমূল নেতারা।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ