জেলা 

শনিবার সকালেও উত্তেজনা বিরাজ সন্দেশখালিতে, বিজেপি প্রতিনিধি দলকে ঢুকতে বাধা, বিক্ষোভে মহিলারা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : অশান্তির রুখতে সমগ্র সন্দেশখালি জুড়ে ১৪৪ ধারা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। নবান্ন থেকে জেলা প্রশাসনের কাছে কড়া নির্দেশ গিয়েছে। শুক্রবার রাত থেকেই পুলিশের টহলদারি বেড়েছে কিন্তু শনিবার সকালে ফের নতুন করে অশান্তি দেখা গেল সন্দেশখালির সিতুলিয়া গ্রামে।বিক্ষোভরত মহিলাদের অভিযোগ, ভুজঙ্গ দাস নামে এক গ্রামবাসীর বাড়িতে রাতের অন্ধকারে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। এই হামলার ঘটনায় পুলিশের মদত রয়েছে বলেও অভিযোগ। সেই ভাঙচুরের ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীরা। অন্য দিকে, সন্দেশখালি থানায় যাওয়ার পথে রামপুরের কাছে বিজেপির প্রতিনিধি দলকে পুলিশ আটকে দেয়। ১৪৪ ধারা জারি থাকায় তাদের গ্রামে ঢুকতে দেওয়া যাবে না বলে স্পষ্ট জানায় পুলিশ। যা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বচসা চলে।

বুধবার রাত থেকেই উত্তপ্ত সন্দেশখালি। তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখ, শিবু হাজরা এবং উত্তম সর্দারকে গ্রেফতারির দাবিতে পথে নেমেছেন গ্রামবাসীদের একাংশ। তাঁদের মধ্যে বেশির ভাগই মহিলা। শিবুর একাধিক পোল্ট্রি ফার্ম, বাগানবাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে উত্তেজিত জনতা।

Advertisement

বৃহস্পতি এবং শুক্রবারও একই ছবি দেখা যায় সন্দেশখালিতে। বাঁশ, দা, কাটারি নিয়ে রাস্তায় নামেন মহিলারা। ঘেরাও করা হয় সন্দেশখালি থানা। শুক্রবার সারা দিন ধরেই দফায় দফায় সন্দেশখালি থানার সামনে যৌথ ভাবে বিক্ষোভ দেখায় জমি রক্ষা কমিটি এবং আদিবাসীদের সংগঠন। পুলিশের সঙ্গে সমানে বচসা চলে।

শনিবার সকাল থেকে পরিস্থিতি থমথমে ছিল। রাস্তাঘাটও শুনশান। বন্ধ রয়েছে দোকানপাট। তবে বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ফের নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। অভিযোগ, শুক্রবার সন্দেশখালি থানার সিতুলিয়া গ্রামের বাসিন্দা ভুজঙ্গ দাসের বাড়িতে চড়াও হয় কয়েক জন। বাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়। এমনকি, ঘর থেকে বাইরে এনে ভুজঙ্গকে মারধর করার অভিযোগও উঠেছে। পরে পুলিশ এসে বিক্ষোভ সরিয়ে দেয়। এলাকায় মাইকিং চালাচ্ছে তারা।

পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে, দলীয় কর্মীদের সঙ্গে দেখা করতে সন্দেশখালি যাওয়ার পরিকল্পনা নেয় রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব। সেই মতো নবদ্বীপ জেলার বিজেপি পর্যবেক্ষক কৃষ্ণেন্দু মুখোপাধ্যায়, বসিরহাট জেলা বিজেপির সভাপতি তাপস ঘোষ এবং বিজেপি নেত্রী অর্চনা মজুমদার-সহ ২৫ জনের একটি প্রতিনিধি দল সন্দেশখালি ঢুকতে গেলে পুলিশের বাধার মুখে পড়ে। রামপুরের কাছে আটকে দেওয়া হয় তাঁদের। পুলিশের সঙ্গে কথা কাটাকাটি চলে দীর্ঘ ক্ষণ। বিজেপি নেতৃত্বের দাবি ছিল, অন্তত তাঁদের মধ্যে থেকে চার জনকে গ্রামে ঢুকতে দেওয়া হোক।

যদিও পুলিশ বিজেপির প্রতিনিধি দলের সেই দাবি মানেনি। পুলিশ তাদের জানায়, ১৪৪ ধারা জারি করা এলাকায় কোনও ভাবেই কাউকে ঢুকতে দেওয়া যাবে না। তাঁরা গ্রামে গেলে নতুন করে উত্তেজনা ছড়াতে পারে। শেষ পর্যন্ত গ্রামে ঢুকতে না পেরে রামপুর থেকেই ফিরতে হয় বিজেপির প্রতিনিধি দলকে।

এই প্রসঙ্গে নবদ্বীপ জেলার বিজেপি পর্যবেক্ষক কৃষ্ণেন্দু বলেন, ‘‘ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি। আমাদের বেআইনি ভাবে আটকে দেওয়া হয়েছে। আমরা বলেছিলাম চার জন যাব। থানায় গিয়ে আমরা কথা বলতে চাইছিলাম। কিন্তু আমাদের বলা হচ্ছে, আমরা গেলে নাকি আইনশৃঙ্খলা ব্যাঘাত ঘটবে। তাই যদি হয়, তবে চার-পাঁচ দিন ধরে কী করছিল পুলিশ? আমাদের পূর্বপরিকল্পিত কর্মসূচি জোর করে বাতিল করেছে। আমাদের দলের কর্মীদের উপর ভয়ঙ্কর অত্যাচার করা হচ্ছে।’’


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ