জেলা 

মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে বহরমপুরে তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির বৈঠক

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : আসন্ন মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে আজ শনিবার বৈকাল ৩টায় বহরমপুর মুর্শিদাবাদ সাংগঠনিক জেলার তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি গোরাবাজার ঈশ্বর চন্দ্র ইনস্টিটিউটে একটি গুরুত্বপূর্ণ সভার আয়োজন করে। উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক হাফিজুর রহমান সাহেব। বিশিষ্টজনদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বর্ষিয়ান শিক্ষক নেতা দিলীপ সিংহ রায়, মোস্তফা কামাল ও সুদীপ সিংহ রায় এবং সহকারী বিদ্যালয় পরিদর্শক দ্বয় (মাধ্যমিক শিক্ষা)যথাক্রমে সেলিম মহাম্মদ সালেহ এবং প্রণব প্রামানিক মহাশয় সহ অনেকেই। প্রায় শতাধিক শিক্ষক শিক্ষিকাদের উপস্থিতিতে সভাটি প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে।

সেলিম মহাম্মদ সালেহ এবং প্রণব প্রামানিক মহাশয় বলেন, আসন্ন মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার সময়সূচির কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। ফলে ছাত্র ছাত্রীরা যাতে কোনোরকম অসুবিধার সম্মুখীন না হয় তার জন্য শিক্ষক শিক্ষিকাদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা পরিচালনার জন্য যে সমস্ত নির্দেশনা দিয়েছেন তার বাস্তবায়নের জন্য পরীক্ষা ব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত শিক্ষকদের ভূমিকার কথা তুলে ধরেন।

Advertisement

এবছরের বহরমপুর মুর্শিদাবাদ সাংগঠনিক জেলার পরীক্ষা কেন্দ্রগুলো ঠিক মতো সিলেকশন হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বর্ষিয়ান শিক্ষক নেতা দিলীপ সিংহ রায়। তিনি বলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার যারা আহ্বায়ক হয়েছেন তারা নিজেদের মন মতো পরীক্ষা কেন্দ্রগুলো তৈরি করেছেন। ছেলেদের বহু স্কুলে মেয়েদের পরীক্ষা কেন্দ্র আবার মেয়েদের স্কুলে ছেলেদের পরীক্ষা কেন্দ্র করা হয়েছে যা পরিকাঠামোগত কারণে পরীক্ষার্থীদের অসুবিধার মধ্যে পড়তে হবে। অনেক পরীক্ষাকেন্দ্রের প্রধান শিক্ষক এবং অভিভাবকদের একাংশ এই বিষয়ে অভিযোগ করেছেন বলে জানান।এই প্রসঙ্গে জেলার তৃণমূল মাধ্যমিক সমিতির বর্তমান সাংগঠনিক অবস্থা নিয়ে কড়া মন্তব্য করেন। কেউ কেউ এমন করছেন যে দিনের পর দিন স্কুল না গিয়ে অন ডিউটি নিয়ে চায়ের দোকানে আড্ডা মারছেন।দল করবেন আর স্কুল ফাঁকি দেবেন এটা চলতে পারে না।দল এটাকে সমর্থন করে না। সমিতির একাংশ নিজেদের ব্যক্তিগত স্বার্থে দলের মধ্যে একাধিক উপদল তৈরি করে সমিতিকে দূর্বল করার চক্রান্ত করছেন। আর এই ধরনের নেতারা যদি মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার মতো গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা ব্যবস্থার সঙ্গে জড়িয়ে থাকেন তাহলে পরীক্ষাকেন্দ্রে সাবোতাজ হতে পারে।এই বিষয়ে আমাদের সকলকে সজাগ এবং সচেতন থাকতে হবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ