কলকাতা 

“যারা আমাদের বলে আমরা সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করি, হিন্দুত্বের রাজনীতি করি, তারাই আজ গোদান, কীর্তন, খোলদান, গঙ্গাজল নিয়ে রাজনীতি করছে। কারা করছে ? : দিলীপ ঘোষ

শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : আজ কোচবিহারের ঝিনাইডাঙার মাঠে গোবরজল ও গঙ্গাজল ছিটিয়ে পবিত্রযাত্রা শুরু করেছে তৃণমূল এই প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, “যারা আমাদের বলে আমরা সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করি, হিন্দুত্বের রাজনীতি করি, তারাই আজ গোদান, কীর্তন, খোলদান, গঙ্গাজল নিয়ে রাজনীতি করছে। কারা করছে ? তৃণমূল। যারা এত পরস্পরবিরোধী কথা বলছে, যাদের নীতি-আদর্শের ঠিক থাকে না, যাদের ভবিষ্যৎ অন্ধকার থাকে তারাই এরকম গো যাত্রা করে। সেইদিকেই তৃণমূল যাচ্ছে। আমরা শুদ্ধ রাজনীতি করি। দেশের স্বার্থে রাজনীতি করি। সংবিধান মেনে করছি। আমরা সেই কাজই করছি। ওরা নাটক করছে।”

দিলীপ ঘোষ আজ অভিযোগ করেন, তৃণমূল কংগ্রেস এখন হিন্দুত্বের রাজনীতি করছে। তিনি বলেন, “আমরা দেশের সংস্কৃতি নিয়ে যে রাজনীতি করি সেটাই ঠিক। মানুষ সেটা গ্রহণ করছে। তাই তারাও আমাদের রাস্তায় আসছে। আমরা অ্যাজেন্ডা ঠিক করছি, তৃণমূল সেটা ফলো করছে। এটা প্রমাণ হয়ে গেছে। ওদের সরকার চালানোর কোনও যোগ্যতা নেই। সেটা প্রমাণিত। রাজ্যে যেভাবে ডামাডোল চলছে, হিংসা চলছে, খুন চলছে, এখানে শাসনব্য়বস্থা ভেঙে পড়েছে। এখানে উন্নয়নের কথা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলতেন সেখানে মানুষ না খেতে পেয়ে মারা যাচ্ছে। বিষমদের খোলা কারবার চলছে। যতরকম অসামাজিক কাজ এখানে চলছে। এটাকে কন্ট্রোল করতে পারছে না। শুধু বিজেপিকে আটকাতে গিয়ে সব শক্তি শেষ হয়ে যাচ্ছে।”

কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ গতকাল বিজেপি-র গণতন্ত্র বাঁচাও যাত্রায় দেরিতে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য রাজ্য সরকারকে তীব্র ভর্ৎসনা করেছে । শনিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে দিলীপবাবু বলেন, “আমরা দেড়মাস আগে সরকারের সঙ্গে কথা বলেছি। লিখিতভাবে সব জানিয়েছি। সরকার চায় না রথযাত্রা হোক। তার জন্য তারা পিছিয়ে গেছে। কিন্তু, কোর্টে  থাপ্পড় খেয়ে ফের সেই রাস্তায় এসেছে সরকার।” হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের নির্দেশ অনুযায়ী,১২ ডিসেম্বর রাজ্যের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি, হোম সেক্রেটারি, ডিজিপি ও বিজেপি-র তিনজন প্রতিনিধিকে আলোচনায় বসে  সিদ্ধান্ত নিতে হবে ওই যাত্রা (রথযাত্রা) কবে হবে (রাজ্য সরকার শেষ সিদ্ধান্ত নেবে)। নিরাপত্তা কেমন থাকবে।  তিনি রথযাত্রা প্রসঙ্গে বলেন , আমরা পুরো তৈরি। খালি তারিখটা পিছিয়ে গেছে।” পাশাপাশি, তিনি বলেন, প্রয়োজনে বিজেপি সুপ্রিম কোর্টেরও দ্বারস্থ হবে। তাঁর বক্তব্য, “যদি তাঁরা তারিখ না দেন হাইকোর্ট রয়েছে। নাহলে সুপ্রিম কোর্ট রয়েছে। হাইকোর্ট বলেছে, সরকার তারিখ দেবে। আজই জানিয়ে দিচ্ছি আমরা তৈরি।”

তবে তাঁর হুঁশিয়ারি, এতকিছু সত্ত্বেও ১৬ ডিসেম্বর শিলিগুড়িতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জনসভার কর্মসূচির কোনও পরিবর্তন করা হচ্ছে না। তাঁর বক্তব্য, “সভার কথা ঠিক রয়েছে। সব পারমিশনের জন্য যোগাযোগ করা হচ্ছে। সব জায়গায় পারমিশনের জন্য আমরা আবেদন জানিয়েছি।” কিন্তু, রাজ্যে রথযাত্রার ভবিষ্যৎ কী? তাঁর জবাব, “রথযাত্রার ভবিষ্যৎ যাই হোক, বিজেপি-র ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।”


শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment