কলকাতা 

প্রদেশ কংগ্রেসের এসএসকেএম অভিযান ঘিরে ধুন্ধুমার অভিষেকের পাড়া, পুলিশের বাধা পেয়ে রাস্তায় বসে পড়লেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী নেতৃত্বে কংগ্রেসের ডাকা এসএসকেএম অভিযানকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে গেল অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাড়ায়। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি নেতৃত্বাধীন মিছিলকে আটকে দেওয়া হয় হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রীটে।ব্যারিকেড করে কংগ্রেসের মিছিল আটকানো হয়। কংগ্রেস কর্মী-সমর্থকরা ব্যারিকেড ভেঙে এগোতে গেলেই পুলিশের সঙ্গে বচসা বাঁধে। অধীরের নেতৃত্বে রাস্তায় বসে পড়ে বিক্ষোভ শুরু করেন কংগ্রেস কর্মীরা।

দুর্নীতি মামলায় ধৃত সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র থেকে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, জেলে অসুস্থ হলেই এসএসকেএম হাসপাতালে পাঠানো হয় চিকিৎসার জন্য। বিরোধীদের অভিযোগ, কেন দুর্নীতিবাজরা শুধু এসএসকেএম-কে বেছে নিচ্ছে, তা বুঝতে হবে। এসএসকেএম-এ গেলে কেউ আর জেলে ফিরতে চাইছে না! বিষয়টি গড়িয়েছে আদালত পর্যন্তও। এরই প্রতিবাদে শনিবার কংগ্রেস কলকাতার বুকে এসএসকেএম অভিযানের ডাক দিয়েছিল।

Advertisement

শুধু জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, সুজয়কৃষ্ণই নন, গ্রেফতারের পরেএসএসকেএমে ভর্তি হয়েছন এমন নামের তালিকা বেশ লম্বা। অনুব্রত মন্ডল, মদন মিত্র, পার্থ চট্টোপাধ্যায়– কে নেই সেই তালিকায়। অভিযোগ এইসব হেভিওয়েট নেতারা এসএসকেএমে ভর্তি থাকায় সাধারণ মানুষরা পরিষেবা পাচ্ছেন না। এমনকী সুজয়কৃষ্ণকে ভর্তি করানোর জন্য বাচ্চাদের আইসিইউ বেডও নাকি খালি করা হয়েছিল।

বঞ্চিত হচ্ছেন গরিব, মুমুর্ষু রোগীরা, এই অভিযোগ তুলে কংগ্রেস এসএসকেএম হাসপাতাল অভিযানের ডাক দেয়। নেতৃত্বে ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি তথা বহরমপুরের সাংসদ অধীর চৌধুরী। এসএসকেএমের ডিরেক্টরকে স্মারকলিপি দিতে চেয়েছিলেন তাঁরা। কিন্তু মিছিল হরিশ মুখার্জি রোডে ঢুকতেই পুলিশ আটকে দেয়। অধীরের অভিযোগ, জিজ্ঞাসাবাদ থেকে বাঁচতে শাসক দলের নেতারা এসএসকেএমে আশ্রয় নিচ্ছেন। যার জেরে সাধারণ মানুষ পরিষেবা পাচ্ছেন না।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ