দেশ 

ফারুক আবদুল্লাহকে তলব ইডির !

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বিজেপি বিরোধী জোট ইন্ডিয়ার প্রভাবশালী নেতাদেরকে নিশানা করেছে মোদি সরকার বলে যে অভিযোগ উঠেছে তার এবার প্রমাণ মিলল ইডির নোটিশ ঘিরে। এবার ইডির নোটিশ পেয়েছেন কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাহ।

এর আগে বিহারের তেজস্বী যাদব (Tejaswi Yadav), শারদ পাওয়ার, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল,ঝাড়খণ্ডের হেমন্ত সোরেনকে নোটিশ পাঠিয়ে তলব করেছিল ইডি। কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে জেকেসিএ (JKCA) আর্থিক দুর্নীতি মামলায় তলব করল ইডি।

Advertisement

ফারুক আবদুল্লাহকে (Farooq Abdullah) ওই আর্থিক তছরুপের মামলায় বৃহস্পতিবারই শ্রীনগরের ইডি অফিসে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাজিরা দিতে বলা হয়েছে। যদিও শ্রীনগরের সাংসদ আজ হাজিরা দেবেন কিনা সেটা স্পষ্ট নয়। উল্লেখ্য, ওই একই মামলায় তদন্ত করছে আরেক কেন্দ্রীয় সংস্থা সিবিআই। তারা ইতিমধ্যেই মামলায় একটি চার্জশিট পেশ করেছে। ইডিও মামলায় একটি চার্জশিট পেশ করেছে।

জেকেসিএ (JKCA) আর্থিক দুর্নীতি মামলায় ২০১৮ সালে ফারুক আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে প্রথম দফায় চার্জশিট পেশ করা হয়। ওই মামলায় ফারুক ছাড়াও আরও তিন জনের বিরুদ্ধে ২০০২ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে ক্রিকেট সংস্থার ৪৩.৬৯ কোটি টাকা নয়ছয় করার অভিযোগ ওঠে। ইডির দাবি, ২০০৬ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ফারুক জেকেসিএ থেকে ৪৫ কোটি টাকারও বেশি সরিয়ে ফেলেন।

এরপর ২০২০ সালে জম্মু-কাশ্মীরে ফারুকের তিনটি বসতবাড়ি, একটি বাণিজ্যিক এবং চারটি জমি বাজেয়াপ্ত করে ইডি। ওই সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ১১.৮৬ কোটি টাকা। ফারুকের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার একের পর এক পদক্ষেপকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা হিসেবেই দেখছে তাঁর দল ন্যাশনাল কনফারেন্স। তাদের বক্তব্য, ৩৭০ ধারা-সহ ভূস্বর্গের একাধিক ইস্যুতে ফারুক বিজেপি সরকারের বিরোধিতা করায় তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ