জেলা 

গ্রামের ছাত্র-ছাত্রী বলে হীনমন্যতায় ভুগো না: হাওড়ার খালনাতে অনুসন্ধানের শিক্ষা কর্মশালায় ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশে বললেন বিজ্ঞানী মলয় ব্যানার্জি

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রাখি সরখেল : প্রায়শই শোনা যায় গ্রামাঞ্চলে শিক্ষা-দীক্ষায় নানান অপ্রতুলতার কথা। এই কথাকে বিশেষ আমল না দিতে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি দৃঢ়তার সাথে আহ্বান জানালেন বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ও আইআইটি ভুবনেশ্বর-এর অধ্যাপক ড. মলয় ব্যানার্জি। তিনি বলেন হতে পারে শহরের তুলনায় গ্রামে শিক্ষায় ও শিক্ষা উপকরণে সুযোগ-সুবিধা কিছু কম পাওয়া যায়, কিন্তু তা বলে হীনমন্যতার কোনো কারণ নেই। গ্রামে থেকে লেখাপড়া শিখেই উঠে এসেছেন আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু, রাধানাথ শিকদারের মতো মহান বিজ্ঞানীরা।

রবিবার হাওড়া জেলার প্রান্তিক অঞ্চলে অনুসন্ধান কলকাতার সহযোগিতায় শতবর্ষের প্রাচীন বিদ্যালয় খালনা রায় রাধাগোবিন্দ ইনস্টিটিউশনে আয়োজন করা হয়েছিল ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিশেষ এক কর্মশালা। ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বড় হওয়ার বীজ বপন করতে মূলত বিদ্যালয়ের প্রাক্তনীদের উদ্যোগেই ছিল এদিনের এই কর্মশালার আয়োজন। আসন্ন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে ক্লাস নাইন এবং ইলেভেনের ছাত্র-ছাত্রীরা সোৎসাহে অংশ নেয় সারাদিনের এই কর্মশালায়।

Advertisement

বিদ্যালয়ের পরিচালন সমিতির সভাপতি নবকুমার সানা, প্রধান শিক্ষক সুখেন্দু বিকাশ রিত সহ বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও প্রাক্তনীদের উজ্জ্বল উপস্থিতিতে ছাত্র-ছাত্রীদের উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মতো।

সারাদিনের অনুষ্ঠান ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে কোনো রকম ভাবে যাতে একঘেঁয়েমি না হয়ে যায় সে ব্যাপারে খেয়াল রেখেছিলেন বিদ্যালয়ের প্রাক্তনী বর্তমানে কর্পোরেট জগতের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব প্রশান্ত ভট্টাচার্য। সমগ্র অনুষ্ঠান তাঁর সুদক্ষ পরিচালনায় জীবন্ত হয়ে উঠেছিল। অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রী সহ অন্যান্য সকল ব্যক্তিত্বদের দিকে ছিল তীক্ষ্ণ নজর। এসো বিজ্ঞান করি হাতে কলমে বিভাগটি পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন প্রবীণ অধ্যাপক বীরেন্দ্রনাথ দাস। বয়স তাঁর ৮৪, তবু দু’ঘণ্টার সেশন ছিল টানটান উত্তেজনায় ভরা, এক মুহূর্তের জন্যও বয়সের ভার তাঁকে কাবু করতে পারেনি।

অনুষ্ঠানের আরেকটি আকর্ষণীয় বিভাগ ছিল ছাত্র-ছাত্রীদের মন ও মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে আলোচনা। ক্রাইসিস ইন্টারভেনশন-এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও বিশিষ্ট মনোবিদ সনজিৎ সেনগুপ্ত -এর কাউন্সিলিং শুনতে দূর দূরান্ত থেকে ছুটে আসেন ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে তাদের অভিভাবকরাও। বিশেষত বড় বড় পরীক্ষার আগে তাঁর কথা টনিকের মতো কাজ করে। যথারীতি আসন্ন মাধ্যমিক-এর আগে পরীক্ষার্থীদের জন্য তাঁর উপশম ছিল ম্যাজিক এর মতো। উপস্থিত ছাত্র-ছাত্রীদের মুখের চেহারা বদলে দিয়েছিল।

মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার আগে সমস্ত ধরনের ছাত্র-ছাত্রীরা অপেক্ষায় থাকে সাজেশন বা নির্বাচিত গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন পাওয়ার জন্য। তাদের প্রয়োজনের দিকে খেয়াল রেখে অনুসন্ধান কলকাতার পক্ষ থেকে অভিজ্ঞ শিক্ষক-শিক্ষিকার তৈরি করা মাধ্যমিক ২০২৪ এর জন্য গুরুত্বপূর্ণ একগুচ্ছ প্রশ্নাবলী তাদের হাতে তুলে দেয়া হয়। তবে এদিন মাধ্যমিক পর্যায়ের উপস্থিত ছাত্রছাত্রীরা খুব খুশি হয় মাধ্যমিক পরীক্ষা জন্য শেষ মুহূর্তের কিছু টিপস এবং বিশেষ পরামর্শ পেয়ে। ভৌত বিজ্ঞানের বিশেষ টিপস নিয়ে এদিন উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রপতি পুরস্কার প্রাপ্ত পদার্থবিদ্যার বিশিষ্ট শিক্ষক তথা পাঠভবন ডানকুনির প্রধান শিক্ষক ড. দেবব্রত মুখোপাধ্যায়। বাংলা এবং গণিত বিষয়ে বিশেষ পরামর্শ দেন বিশিষ্ট শিক্ষক সঞ্জীব বসু, গৌরাঙ্গ সরখেল, নায়ীমুল হক ও শুভজিৎ মাইতি। আরো যাদের উপস্থিতি এ দিনের কর্মশালাকে সমৃদ্ধ করেছিল তারা হলেন প্রশান্ত পাল, ইন্দ্রানী রায়, স্বদেশ রিত, মনিরউদ্দিন আহমেদ, কৃষ্ণা রায় প্রমূখ। এই ধরনের অনুষ্ঠানে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য অনুসন্ধান কলকাতার পক্ষে আগত সকল শিক্ষক ও সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন বিদ্যালয় পরিচালন সমিতির সভাপতি, প্রধান শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ বিদ্যালয়ের প্রাক্তনীরা। প্রত্যেকে এক বাক্যে স্বীকার করেন এই উদ্যোগে আন্তরিকতার ছোঁয়া ছিল এবং অবশ্যই ছাত্র-ছাত্রীদেরকে জীবন গড়ার পথে এক ধাপ এগিয়ে রাখল।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ