কলকাতা 

৬৫৯৪ নতুন শিক্ষক পদে নিয়োগ কবে করবে এসএসসি ? পড়ুন বিস্তারিত

শেয়ার করুন
  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জামিতুল ইসলাম : রাজ্যের আপার প্রাইমারি স্কুলগুলিতে আরও প্রায় সাত হাজারের কাছাকাছি শিক্ষক শূন্যপদ বৃদ্ধি পেতে চলেছে তা আগেই জানানো হয়েছে ৷ এবার, সেই শূন্যপদকে বাস্তবায়িত করে রাজ্য সরকার ৷ গত সপ্তাহেই আপার প্রাইমারিতে ৬৫৯৪টি নতুন শিক্ষক পদে নিয়োগের অনুমোদন দিয়েছে রাজ্য মন্ত্রিসভা৷ অর্থমন্ত্রকের অনুমতির পর মন্ত্রিসভা এই নতুন শিক্ষক পদগুলিতে অনুমোদন দেওয়ায় তা এখন রাজ্যের শিক্ষা দপ্তরের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে ৷ প্রশ্ন, এই নতুন শিক্ষক পদে নিয়োগ হবে কবে ?
স্কুল শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর, প্রথমে আপার প্রাইমারি স্তরে যে নিয়োগ বাকি রয়েছে তা সম্পূর্ণ করা হবে ৷ ২০১৬ সালে যে আপার প্রাইমারি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছিল তাতেই শূন্যপদ ছিল ১৪,০৮৮ ৷ গত দু’বছরে আপার প্রাইমারির সেই নিয়োগ এখনও সম্পূর্ণ হয়নি ৷ ফলে স্বাভাবিক নিয়মেই এই শূন্যপদ বেড়ে যাওয়ার কথা ৷ এই স্তরে আগে নিয়োগ শেষ করা হবে ৷ সেক্ষেত্রে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এসএসসির যে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছিল, তাতে উল্লেখ করা হয়েছিল যে এই ১৪,০৮৮ শূন্যপদ পরবর্তী কালে একাধিক পরিস্থিতির ভিত্তিতে বেড়ে যেতে পারে ৷ এখন আলোচনা চলছে, এই শূন্যপদ এমনিতেই শেষ দু’বছরে স্বাভাবিক নিয়মে কিছুটা বেড়েছে ৷ সঙ্গে নতুন প্রায় ২১৯৮টি স্কুলের তৈরি হওয়া শূন্যপদ যোগ করে দেওয়া যায় কিনা ৷ এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন, ২০১৬ সালের এই আপার প্রাইমারির জন্য গৃহীত পরীক্ষা শেষবারের মতো প্রশিক্ষণহীন প্রার্থীরা দিয়েছিল ৷

এই মুহূর্তে একাদশ-দ্বাদশ এবং কিছু ক্ষেত্রে নবম-দশম শ্রেণির নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে ৷ যাঁদের ডকুমেন্ট ভেরিফিকেশনের কাজ হয়ে গেছে তাঁদের এসএমএস পাঠিয়ে পুলিশ ভেরিফিকেশন ফর্ম বা অন্যান্য প্রাসঙ্গিক যাবতীয় কাগজপত্র প্রদানের কাজ চলছে ৷ এই প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পরেই আপার প্রাইমারি স্তরে শিক্ষক নিয়োগে হাত দেওয়া হবে বলে খবর ৷ সুতরাং, আপার প্রাইমারি স্তরে যে প্রার্থীরা পরীক্ষা দিয়েছিলেন, তাঁরা আশা রাখতে পারেন এই নতুন শূন্যপদে নিজেদের স্থান পাওয়ার ব্যাপারে ৷ এছাড়াও আশা করা যাচ্ছে, আগামী সপ্তাহ দুয়েকের মধ্যে নতুন শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হতে পারে৷


শেয়ার করুন
  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment