দেশ 

Mahua Moitra : ‘‘মোদী সরকার যদি ভেবে থাকে, আমাকে এভাবে চুপ করিয়ে আদানি ইস্যু থেকে তারা মুক্তি পাবে, তবে ভুল ভাবছে’’ : মহুয়া মৈত্র

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রত্যাশা মত মহুয়া মৈত্রের সাংসদ পদ খারিজ হয়ে গেল। সংসদ পদ খারিজ হয়ে যাওয়ার পর কার্যত মহুয়া মৈত্র এখন। সংসদের বাইরে সরব হবেন বলে জানিয়েছেন। শুক্রবার বেলা বারোটা নাগাদ সংসদে এথিক্স কমিটির রিপোর্ট পেশ করা হয় তারপরে ই আলোচনার দাবিতে বিরোধীরা হইহট্টগোল শুরু করে দেয়। ফলে বেলা দুটো পর্যন্ত সংসদ মুলতবি হয়ে যায়, এরপরেই সংসদ বসলে কোনরকম আলোচনার সুযোগ না দিয়ে স্পিকার সরাসরি সংসদের কাছে এথিক্স কমিটির রিপোর্ট পেশ করে।

এথিক্স কমিটির সুপারিশ ধ্বনি ভোটে লোকসভায় পাস হয়ে যায়। এরপরই আনুষ্ঠানিকভাবে মহুয়া মৈত্র কে লোকসভা থেকে বহিষ্কার করে স্পিকার।

Advertisement

লোকসভা থেকে বেরিয়ে মহুয়া বলেন, ‘‘লোকসভার এথিক্স কমিটিতে ‘এথিক্স’ বলে কিছু অবশিষ্ট নেই। তারা সব নিয়ম ভেঙে ফেলেছে। এমন একটা কারণে আমাকে বহিষ্কার করা হল, যা লোকসভার সকল সদস্যের মধ্যে প্রচলিত একটি অভ্যাস। আমি কারও কাছ থেকে টাকা নিয়েছি বা কোনও উপহার নিয়েছি, তার কোনও প্রমাণ নেই।’’

তিনি আরও বলেন, ‘‘মোদী সরকার যদি ভেবে থাকে, আমাকে এভাবে চুপ করিয়ে আদানি ইস্যু থেকে তারা মুক্তি পাবে, তবে ভুল ভাবছে।’’

লোকসভা থেকে বহিষ্কারের পর এ বার তাঁর কাছেও সিবিআই, ইডির মতো কেন্দ্রীয় সংস্থা পাঠানো হবে, আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মহুয়া। তিনি বলেন, ‘‘এ বার আমার কাছে সিবিআই আসবে। ছ’মাস আমাকে সিবিআই দিয়ে হেনস্থা করা হবে।’’

https://x.com/PTI_News/status/1733062165861429693?s=20

শুক্রবার লোকসভায় তৃণমূল, কংগ্রেস এবং অন্যান্য বিরোধী দলের তরফে মহুয়াকে নিজের বক্তব্য জানানো এবং আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছিল। সেই অনুরোধও রাখেননি স্পিকার। অতীতের দৃষ্টান্ত টেনে তিনি জানান, আগেও এই ধরনের ঘটনায় অভিযুক্ত সদস্য কিছু বলার সুযোগ পাননি। পাশাপাশি বিজেপির যুক্তি ছিল, মহুয়া আগে নিজের কথা বলার সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু সে সময় তিনি সভাকক্ষ থেকে ওয়াক আউট করে বেরিয়ে যান।

অন্য দিকে মহুয়ার পাশে দাঁড়িয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘‘মহুয়াকে আত্মপক্ষ সমর্থন করার সুযোগ দেওয়া হয়নি। এক জন মহিলাকে বিজেপি রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য যে ভাবে হেনস্থা করল, তাতে গণতন্ত্রকে হত্যা করা হল। দল মহুয়ার পাশে ছিল, আছে। বিজেপির প্রতিহিংসাপরায়ণ রাজনীতি প্রমাণিত।’’


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ