কলকাতা 

ডোমকলের তৃণমূল বিধায়ক জাফিকুল ইসলাম কোথায় ?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বৃহস্পতিবার সকালে মুর্শিদাবাদের  ডোমকলের তৃণমূল বিধায়ক জাফিকুল ইসলামের বাড়িতে যখন সিবিআই হানা দেয় তখন এই বিধায়ক কলকাতার এমএলএ হোস্টেলে অবস্থান করছিলেন। এমনকি সিবিআই এর আধিকারিকরা জাফিকুল ইসলামের বাড়িতে গেলে তাদেরকে জানানো হয় বিধায়ক বিধানসভা অধিবেশনে যোগ দিতে কলকাতায় গিয়েছেন। আর এরপরেই সাংবাদিকরা বিধানসভার অভ্যন্তরে তন্ন তন্ন করে জাফিকুল ইসলামকে খুঁজতে থাকে কিন্তু কোথাও বিধানসভায় দেখা যায়নি তৃণমূলের এই বিধায়ককে।

তবে তিনি এমএলএ হোস্টেলে দুপুরবেলা পর্যন্ত ছিলেন বলে জানা গেছে তারপরে খাওয়া-দাওয়া সেরে তিনি বাড়ি যাচ্ছেন বলে বেরিয়ে যান। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জাফিকুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। ডোমকলের এই তৃণমূল নেতার বাড়ি থেকে কয়েক লক্ষ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

Advertisement

 

ভোরবেলায় তাঁর মুর্শিদাবাদের বাড়িতে যখন সিবিআই হানা দেয় তখন তৃণমূল বিধায়ক জাফিকুল ইসলাম কলকাতায়। পরিবারের তরফে জানানো হয় তিনি বিধানসভার শীতকালীন অধিবেশনে যোগ দিতে কলকাতায় গিয়েছেন। তবে বৃহস্পতিবার বিধানসভা চত্বরে তাঁকে দেখা যায়নি। বুধবার অবশ্য ছিলেন। তৃণমূলের বিক্ষোভে কালো পোশাক পরে যোগও দিয়েছিলেন। এর পরে তিনি এমএলএ হোস্টেলে চলে যান বলেই জানা যায়।

কিন্তু বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তাঁর বাড়িতে সিবিআই তল্লাশি শুরু করার পরে বিধানসভায় খোঁজ পড়ে জাফিকুল কোথায় গেলেন! শাসক এবং বিরোধী বিধায়কদের মধ্যেও এ নিয়ে আলোচনা হয়। পরে তৃণমূল সূত্রে জানা যায়, সকাল থেকে কিড স্ট্রিটের এমএলএ হস্টেলেই ছিলেন তিনি। দুপুরের খাওয়াদাওয়াও সারেন সেখানে। এর পরে গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়েন। হস্টেলে থাকা কয়েক জনকে বলে যান, বাড়ি যাচ্ছেন। কিন্তু সন্ধ্যা পর্যন্ত ডোমকলের বাড়িতে পৌঁছননি জাফিকুল। তিনি তবে কোথায় গেলেন? এ নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

অন্য দিকে, জাফিকুলের বাড়িতে বিপুল পরিমাণে নগদ অর্থ উদ্ধার হয়েছে বলে সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে। এখনও গণনা চলছে। যদিও এ ব্যাপারে সিবিআইয়ের তরফে আনুষ্ঠানিক ভাবে কিছু জানানো হয়নি। অন্য দিকে, জাফিকুলও কোথাও কোনও মন্তব্য করেননি। তবে তাঁর দল তৃণমূল এখনও জাফিকুলের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করেনি। বরং, দলের তরফে সবটাই বিজেপির চক্রান্ত বলে দাবি করা হয়েছে। দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ সাংবাদিক বৈঠক করে বলেন, ‘‘কোনও কোনও সূত্রে বলা হচ্ছে, জাফিকুলের বাড়ি থেকে টাকা পাওয়া গিয়েছে। সেই টাকা বৈধ না অবৈধ, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় এখনও আসেনি। যদি ব্যবসার টাকা হয়, তা হলে তার বৈধতা নিয়ে কার কী বলার রয়েছে? আর যদি অবৈধ হয়, তা হলে দলের অবস্থান আগেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দিয়েছেন— জ়িরো টলারেন্স।’’


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ