কলকাতা 

এথিক্স কমিটির গোপন রিপোর্টের খসড়া ফাঁস হল কী ভাবে? স্পিকারকে চিঠি লিখে জানতে চাইলেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : এথিক্স কমিটির গোপন রিপোর্টের খসড়া ফাঁস হল কী ভাবে? তা-ও আবার একটি নির্দিষ্ট সংবাদমাধ্যমের হাতে গেল কী করে? এই অস্বস্তি কর প্রশ্ন তুলে লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লাকে চিঠি দিয়েছেন কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। বৃহস্পতিবার স্পিকারকে লেখা চিঠিতে মহুয়া এমন ঘটনাকে বিশেষ অধিকার লঙ্ঘনের সামিল বলে অভিযোগ করেছেন।

বুধবার একটি সংবাদমাধ্যম দাবি করে, তৃণমূল সাংসদ মহুয়ার সাংসদ পদ খারিজ করা হোক, এমনটাই সুপারিশ করেছে লোকসভার এথিক্স কমিটি। ওই সংবাদমাধ্যমটি জানায়, ৫০০ পাতার ওই রিপোর্টে মহুয়ার বিরুদ্ধে আইনি তদন্তের পরামর্শও দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারকে। রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, মহুয়ার কাজ ‘অত্যন্ত আপত্তিকর, অনৈতিক এবং অপরাধমূলক’। তাঁর লোকসভার সদস্যপদ খারিজ করা উচিত বলে মনে করে কমিটি। লোকসভার শীতকালীন অধিবেশনে এথিক্স কমিটির এই খসড়া রিপোর্ট স্পিকারের কাছে জমা দেওয়া হবে। তার পর আলোচনার ভিত্তিতে নেওয়া হবে সিদ্ধান্ত। কিন্তু স্পিকারের কাছে সেই রিপোর্ট জমা পড়ার আগেই মহুয়া চিঠি দিয়ে স্পিকারের কাছেই অভিযোগ জানালেন।

Advertisement

বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টে নাগাদ কমিটিতে হাজিরা দেওয়ার কথা মহুয়ার। তার আগেই স্পিকারের কাছে চিঠি লিখে এথিক্স কমিটির ওপরই চাপ তৈরির করার ফলে অস্বস্তিতে পড়লেন স্পিকার। এ ক্ষেত্রে মোট ছ’টি অভিযোগের কথা উল্লেখ করে মহুয়া স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। সঙ্গে বুধবার কী ভাবে ওই সংবাদমাধ্যমের হাতে এথিক্স কমিটির রিপোর্ট গেল, তা নিয়েও স্পিকারের কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন কৃষ্ণনগরের সাংসদ।

স্বাধীন ভারতে এই ধরনের ঘটনা এর আগে ঘটেনি। ফলে এথেক্স কমিটির রিপোর্ট কিভাবে বাইরে চলে গেছে তা নিয়ে অবশ্যই স্পিকার নিরপেক্ষ অবস্থান নিলে তদন্ত করতে হবে। এছাড়া স্পিকারের কাছে অন্য কোন পথ খোলা নেই। এই অবস্থায় যদি মহুয়া মৈত্রের বিরুদ্ধে কড়া অবস্থান নেন স্পিকার সেক্ষেত্রে মোদি সরকারের ভাব মূর্তিতে দেশে এবং বিদেশে অনেকটাই খারাপ হয়ে যাবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ