জেলা 

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে ৪২ এ ৪২ পাবে তৃণমূল কংগ্রেস : বিধায়ক ডাঃ নির্মল মাজি

শেয়ার করুন

অভিজিৎ হাজরা, আমতা, হাওড়া :-  গ্ৰামীণ হাওড়া জেলার উলুবেড়িয়া উত্তর বিধান সভা কেন্দ্রের বিধায়ক ডাঃ নির্মল মাজির উদ্যোগে বিজয়া সম্মিলনী উপলক্ষে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হল। সাংবাদিক সম্মেলনটি হয় আমতা চৌরাস্তায় তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয় ভবনে।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন হাওড়া জেলা পরিষদের কর্মাধক্ষ বিমল দাস, আমতা ১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি জয়শ্রী বাগ, পঞ্চায়েত সমিতির দু ‘ ই কর্মাধ্যক্ষ শুভজিৎ সাহা ও তুষার কর সিনহা, উলুবেড়িয়া পঞ্চায়েত সমিতির প্রাক্তন সহ সভাপতি সেখ ইলিয়াস, উলুবেড়িয়া উত্তর বিধান সভা কেন্দ্রের মহিলা নেত্রী শিলা মাখাল সহ প্রমুখ তৃণমূল কংগ্রেস নেতা – নেত্রীবৃন্দ।

Advertisement

সাংবাদিক সম্মেলনে ডাঃ নির্মল মাজি বলেন, দলের নির্দেশে রাজ্যের প্রতিটি ব্লকে বিজয়া সম্মেলনের মাধ্যমে জনসংযোগ কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। তিনি বলেন, অখিল ভারত তৃণমূল কংগ্রেস ২০১১ সালে ক্ষমতায় এসেছে।বিগত বামফ্রন্টের সময়ে যেমন বিমাতৃ সুলভ আচরণ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার,রাজ্য সরকারের প্রতি বিরূপ মনোভাব দেখিয়েছে, বিভিন্ন ভাবে রাজ্যকে দমানোর চেষ্টা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার । পরিবতর্নের সরকার প্রথম দিন থেকেই আমাদের বঞ্চনা করছে। কেন্দ্রীয় সরকার আমাদের প্রতি বিমাতা সুলভ আচরণ করছে।নানা ভাবে রাজ্যকে বঞ্চনার শিকার বানাচ্ছে তাতে আমাদের আন্দোলনের পথে নামতে বাধ্য করছে। কেন্দ্রীয় সরকারের জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে যারাই প্রতিবাদ করছে তাদের আক্রমণের লক্ষ্য করা হচ্ছে। তিনি এও বলেন, কেন্দ্রীয় জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিবাদ ও আন্দোলন করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।তাই কেন্দ্রীয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণের লক্ষ্য করেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ সাংসদ, মন্ত্রী, বিধায়ক ও তৃণমূল কংগ্রেসের অন্যান্য নেতা – নেত্রীদের আক্রমণের লক্ষ্য করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অন্যায় ভাবে সি বি আই,ই ডি দিয়ে তদন্ত করাচ্ছে। তাদের সুনাম নষ্ট করছে। তাদের হেনস্থা করা হচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গায়ে কালি লাগানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার দীর্ঘ দিন ধরে গরিব মানুষের একশো দিনের কাজের টাকা, বাংলা আবাস যোজনার টাকা আটকে রেখেছে।গরিব মানুষের নায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত রেখে তাদের ভাতে মারার চেষ্টা করছে। প্রতিদিন নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়ে চলেছে। কেন্দ্রীয় সরকারের সেদিকে কোন চিন্তা ভাবনা নেই। কেন্দ্রীয় সরকারের অন্যান্য জনবিরোধী নীতি, রাজ্যের প্রতি বঞ্চনার বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ, বিধায়করা দিল্লিতে ধর্নায় বসলে কেন্দ্রীয় পুলিশ তাদের সঙ্গে অকথ্য খারাপ আচরণ করছে। তিনি এও বলেন, তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের নির্দেশ , কেন্দ্রীয় সরকার যদি একশো দিনের কাজের টাকা, শ্রমিকদের প্রাপ্য মজুরি না দেয় তাহলে তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ ও বিধায়করা তাদের প্রাপ্য বেতনের টাকা থেকে যতটা সম্ভব দিয়ে একটা তহবিল তৈরি করে সেই টাকা একশো দিনের কাজের বঞ্চিত শ্রমিকদের হাতে কিছু কিছু করে তুলে দেবেন। তিনি এও বলেন,ই ডি,সি বি আই কেন্দ্রীয় এজেন্সি দিয়ে ও তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ , মন্ত্রী, বিধায়কদের বিরুদ্ধে তদন্ত করালে ও বি জে পি – র কোন লাভ হবে না।আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে হাওড়া, উলুবেড়িয়া দু টি আসনেই এবং রাজ্যের ৪২ টি আসনের ৪২ টি আসনেই তৃণমূল কংগ্রেস জয়লাভ করবে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ