দেশ 

“বিজেপি তো কেবল মূর্তি বসিয়ে যাচ্ছে ! ৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা খরচ করে মূর্তি বানিয়ে কী হয়েছে বলুন তো! মানুষ খেতে পাচ্ছে না। খাবার নেই। জল নেই। হাসপাতাল নেই। ওরা এই সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার মূর্তি দিয়ে কী করবে?” : মহম্মদ আজহারউদ্দিন

শেয়ার করুন
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : মহম্মদ আজহারউদ্দিন ভারতীয় ক্রিকেট তারকা হিসেবে বিশ্বজুড়ে খ্যাতি অর্জন করেছেন । ভারতীয় দলের ক্রিকেট অধিনায়ক হিসেবে তিনি সফল । এই আজহারউদ্দিনকেই তেলেঙ্গানা রাজ্যের প্রদেশ কংগ্রেসের কার্যনিবার্হি সভাপতি করেছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী । দীর্ঘ ১৮ বছর পর তিনি কোনো বিশেষ দায়িত্ব পেলেন। আজহারউদ্দিনকে নির্বাচনের মুখে তেলেঙ্গানা কংগ্রেসের দায়িত্ব দিয়ে বাজিমাত করতে চেয়েছেন রাহুল । কারণ এই মুহুর্তে তেলেঙ্গানায় কংগ্রেসকে জিততে গেলে মুসলিম ভোটের একটা বিরাট অংশ পেতে হবে । মিম নেতা আসাদউদ্দিন ওয়াইসি যেভাবে কংগ্রেসকে তেলেঙ্গানা বিধানসভা নির্বাচনে আক্রমণ করছেন তার মোকাবিলা করার জন্য আজহারউদ্দিনের মতো মুসলিম সম্প্রদায় কোনো আইকনকে প্রয়োজন ছিল । রাহুল গান্ধী সঠিকভাবে সঠিক সময়ে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন । মনে করা হচ্ছে , আজহারউদ্দিন দায়িত্ব পাওয়ার পর তেলেঙ্গানা রাজনীতিতে কংগ্রেস যে মুসলিম সম্প্রদায়ের কাছে ফের প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠতে  চলেছে তা বলাই বাহুল্য ।

দায়িত্ব গ্রহণ করার পরেই কলকাতার ডিজিটাল আনন্দবাজারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আজহারউদ্দিন বলেছেন, দেশের উন্নয়নে বিজেপি সরকার কোনো কাজই করেনি । “ওই দলটা তো কেবল মূর্তি বসিয়ে যাচ্ছে! ৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা খরচ করে মূর্তি বানিয়ে কী হয়েছে বলুন তো! মানুষ খেতে পাচ্ছে না। খাবার নেই। জল নেই। হাসপাতাল নেই। ওরা এই সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার মূর্তি দিয়ে কী করবে? ৪০ বছর আগে মূর্তি বসালে ভাল লাগত। সেই জমানা চলে গিয়েছে। আজকের জমানা ও রকম নয়।

রাম মন্দির প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে ভারতীয় ক্রিকেটের মুসলিম আইকন মহম্মদ আজহারউদ্দিন বলেন  “এ তো প্রতি বার ভোটের আগের এক গল্প। আমার মনে হয়, এ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হওয়া উচিত। কোথাও একটা থামা প্রয়োজন। না হলে এ চলতেই থাকবে।”

তেলেঙ্গানার আর এক মুসলিম রাজনৈতিক দল মিম সম্পর্কে ডিজিটাল আনন্দবাজারের প্রতিনিধি আজহারউদ্দিনকে প্রশ্ন করলে । তিনি সরাসরি আসাদউদ্দিন ওয়াইসির বিরুদ্ধে কোনো বিরুপ মন্তব্য না করে নিজের রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিই ব্যাখ্যা করেছেন । কারণ অহেতুক মিম বা ওয়াইসিকে আক্রমণ করলে ভোটে তার প্রভাব পড়ার সমূহ সম্ভাবনা থাকবে । তাই একজন কুশলী রাজনীতিবিদ হিসেবে  তিনি বললেন , “দেখুন, ওদের রাজনীতি কী, সেটা ওরাই ভাল জানে। আমি আমার দলকে আরও শক্তিশালী করতে চাই। অন্যরা কী করছে, তা দিয়ে আমার কিছু যায় আসে না। আমাদের দল শক্তিশালী হবে। আমাদের ক্যাডার ভাল হবে। মানুষকে বলব, আমাদের দল কী করতে চাইছে। ওটাই আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। মানুষকে এটা বলতে হবে, আমরা কী করতে চাইছি। আর সেই কাজের উপরেই জোর দেওয়া উচিত।  যদি অন্যদের ব্যাপারে ভাবতে থাকি, তো খুব মুশকিল হয়ে যায়। আমাদের ফোকাস নড়ে যাবে তা হলে।“

 


শেয়ার করুন
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment