দেশ 

মারাঠা সংরক্ষণ নিয়ে কুমন্তব্য! প্রকাশ্য দিবালোকে বিধায়কের বাড়িতে আগুন ধরালো আন্দোলনকারী জনতা, বিজেপি শাসিত মহারাষ্ট্রের ঘটনায় আইন-শৃঙ্খলা প্রশ্নের মুখে!

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : মারাঠা সম্প্রদায়ের জন্য আলাদা করে সরকারি চাকরি ও শিক্ষাতে সংরক্ষণের দাবিতে আন্দোলন করছেন মনোজ জারাঙ্গে। আর সেই আন্দোলনকে কটাক্ষ করেছিলেন এন সি পি বিধায়ক প্রকাশ সোলাঙ্কি। মহারাষ্ট্র জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে কটাক্ষ করার কারণে সোমবার দুপুরে আচমকা কয়েকশো মানুষ এনসিপি বিধায়কের বাড়িতে ইট পাথর নিক্ষেপ করতে থাকে। এখানেই শেষ নয় বিক্ষোভ দেখাতে দেখাতে বিক্ষোভকারী জনতা শেষ পর্যন্ত বিধায়কের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। সেই সময় ওই বিধায়ক প্রকাশ সোলাঙ্কি পরিবারের সঙ্গে বাড়িতেই সময় অতিবাহিত করছিলেন। যদিও বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিলেও বিধায়ক এবং তার পরিবারের সকল সদস্য নিরাপদে আছেন বলে জানা গেছে। তবে সম্পত্তির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ প্রসঙ্গে এন সি পি বিধায়ক প্রকাশ সোলাঙ্কি সংবাদ সংস্থা এন আই একে জানিয়েছেন,‘‘যখন হামলা হয় আমি এবং আমার পরিবার বাড়ির ভিতরেই ছিলাম। তবে সৌভাগ্যের কথা হল, আমি বা আমার পরিবার কিংবা আমার বাড়ির কর্নীরা কেউই এই ঘটনা জখম হননি। নিরাপদে বেরিয়ে আসতে পেরেছিলাম আমরা। তবে সম্পত্তির প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কতটা তা এথনও জানা নেই আমার।’’

আন্দোলনকারীরা জানিয়েছেন, মহারাষ্ট্রের কোটা আন্দোলন নিয়ে সম্প্রতি বিরূপ মন্তব্য করেছিলেন বিধায়ক। সোমবারের ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে তাঁকে ‘শিক্ষা’ দিতেই।

Advertisement

মারাঠা সম্প্রদায়ের জন্য সংরক্ষণ চেয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অনশন আন্দোলন কর্মসূচির নেতা মনোজ জারাঙ্গে পাটিলের অভিযোগ, রাজ্যের শাসক এবং বিরোধী দু’পক্ষই মারাঠাদের দীর্ঘদিনের দাবি, সংরক্ষণ নিয়ে কোনও পদক্ষেপ করেনি। মুখ্যমন্ত্রী একনাথ শিন্ডে এবং উপমুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ এ ব্যাপারে কথা দিলেও শেষ পর্যন্ত কথা রাখেননি। বরং বার বার পিছিয়ে দিয়েছেন সংরক্ষণ সংক্রান্ত আইন তৈরির প্রক্রিয়া। মনোজের দাবি, কোনও বিশেষ ক্ষমতাবানের অঙ্গুলিহেলনেই শাসকদল এই সংরক্ষণের আইনটি কার্যকর করতে চাইছে না। এর মধ্যেই মহারাষ্ট্রের ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি (এনসিপির) তথা শরদ পাওয়ারের দলের বিধায়ক প্রকাশ ওই সংরক্ষণ আন্দোলন নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন।

 


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ