দেশ 

বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশে কুকুরের অধিকার নিয়ে সংসদের এথিক্স কমিটির বৈঠক মহুয়া মৈত্রের বিরুদ্ধে গঠিত এথিক্স কমিটির প্রথম বৈঠকে বিস্ফোরক বিরোধী সদস্যরা, অস্বস্তিতে শাসক দল

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশে কুকুরের অধিকার নিয়ে সংসদের এথিক্স কমিটির বৈঠক বসে এই ভাষাতে গতকাল বৃহস্পতিবার মহুয়া মৈত্র ইস্যুতে এথিক্স কমিটির বৈঠকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করলেন বিরোধী দলের সদস্যরা। গতকাল ছিল বৃহস্পতিবার এথিক্স কমিটির প্রথম বৈঠক বৈঠকের শুরুতেই বিরোধী দলের সদস্যরা পদ্ধতিগত ত্রুটি নিয়ে আক্রমণ শুরু করেন। মোট ১৫ জন সদস্যের মধ্যে গতকাল একটি সমিতির বৈঠকে ১১ জন উপস্থিত ছিলেন এর মধ্যে বিজেপির সাংসদ-৫ জন বিরোধী দলের সাংসদ পাঁচজন ছিলেন। চেয়ারম্যান বিনোদ সোনকার অবশ্যই বিজেপি দলের সদস্য।

এখানে বৈঠকের শুরুতেই বিরোধীদলের সদস্যরা দাবি করতে থাকেন অভিযুক্ত মহুয়া মৈত্র কে না ডেকে কেন অভিযোগকারীদের ডাকা হল। এ নিয়ে প্রায় তিন এক ঘন্টা ধরে আলোচনা হয় শেষে ভোটাভুটিতে দেখা যায় পাঁচজন সদস্য অভিযুক্তকে ডাকার পক্ষে আর পাঁচজন সদস্য অভিযোগকারীকে ডাকার পক্ষে শেষ পর্যন্ত চেয়ারম্যানের একটি ভোটে অভিযোগকারী বক্তব্য শোনার সিদ্ধান্ত হয়।

Advertisement

প্রথমদিনের বৈঠকে অভিযোগকারী বিজেপি সাংসদ নিশিকান্ত দুবে ও মহুয়ার প্রাক্তন প্রেমিক তথা আইনজীবী জয় অনন্ত দেহাদ্রাইকে ডেকে তাঁদের বক্তব্য শোনে কমিটি। সূত্রের খবর, বিরোধীদের প্রশ্নবাণে ‘জর্জরিত’ হতে হয় জয়কে। যদিও কমিটির চেযারম্যান প্রথমদিনের বৈঠকের পর তেমন কিছু জানাননি।চেয়ারম্যান বিনোদ ছাড়া ১০ জন উপস্থিত ছিলেন বৃহস্পতিবারের বৈঠকে। ওই ১০ জনের মধ্যে পাঁচ জন বিজেপির সাংসদ। বাকিদের মধ্যে দু’জন কংগ্রেস, এক জন নীতীশ কুমারের জনতা দল ইউনাইটেড, এক জন সিপিআই এবং এক জন মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টির সাংসদ। প্রসঙ্গত, সর্বভারতীয় স্তরে বিজেপি-বিরোধী জোট ‘ইন্ডিয়া’তে বিএসপি নেই। কিন্তু এথিক্স কমিটিতে ‘বহেনজি’র দলের সাংসদ সমানে-সমানে লড়ে গিয়েছেন বিরোধী শিবিরের হয়ে।

ঘণ্টাখানেক পর বৈঠকে প্রবেশ করেন আইনজীবী তথা মহুয়ার প্রাক্তন প্রেমিক জয়। তাঁর কাছে এথিক্স কমিটির সদস্যদের একাংশ জানতে চান, তিনি যে অভিযোগ করেছেন, তার সপক্ষে তাঁর কাছে কী নথি রয়েছে? বৈঠকে উপস্থিত সূত্রের বক্তব্য, ওই একই প্রশ্ন জয়কে ঘুরিয়েফিরিয়ে ১৪ বার করা হয়। প্রতি বারই জয় বলেন, তাঁর কাছে কোনও নথি নেই। মহুয়ার সঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত সম্পর্ক ছিল। কুকুরের মালিকানা নিয়ে তাঁদের মধ্যে বিবাদ হয়। তাঁর যা বক্তব্য তিনি তাঁর হলফনামাতেই বলেছেন।

জয় পোষ্য-প্রসঙ্গ তুলতে এথিক্স কমিটির এক সদস্য বলেন, কুকুর নিয়ে বিবাদের জন্য বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের আইনসভার এথিক্স কমিটিকে বৈঠক করতে হচ্ছে, সেই বিষয়টি বৈঠকের কার্যবিবরণীতে নথিভুক্ত করা হোক। যাতে ভবিষ্যতে লোকে বিষয়টি জানতে পারেন। শেষ পর্যন্ত তা কার্যবিবরণীতে লিপিবদ্ধ হয় বলে জানা গিয়েছে।

কমিটি সূত্রের খবর, জয়কে প্রশ্ন করা হয়, তাঁর অভিযোগ সংবলিত চিঠিটি কী করে একমাত্র নিশিকান্তের হাতেই পৌঁছল? যদি না তিনি নিজে সেটি বিজেপির সাংসদকে দিয়ে থাকেন? কমিটির এক সদস্য জানান, জয় দাবি করেন, তিনি নিশিকান্তকে চেনেন না! কমিটির বিরোধীপক্ষের সদস্যেরা তাঁকে পাল্টা জানান, নিশিকান্তের সঙ্গে দু’টি সামাজিক অনুষ্ঠানে জয়কে দেখা গিয়েছিল। যার জবাবে জয় বলেন, অনুষ্ঠানে দেখা গেলেও তাঁর সঙ্গে নিশিকান্তের কোনও কথা হয়নি।

এরপরই সিদ্ধান্ত হয় মহুয়া মৈত্রকে খুব শীঘ্রই ডাকা হবে তখন চেয়ারম্যান জানিয়ে দেন ৩১ অক্টোবর মঙ্গলবার মৈত্রকে ডাকা হচ্ছে। তথ্য সূত্র: ডিজিটাল আনন্দবাজার


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ