আন্তর্জাতিক 

১৬ দিন ধরে গাজায় একতরফা হামলা চালানোর পরও হামাসের হেফাজত থেকে ইসরাইলিদের মুক্ত করতে না পারায় প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ জনতার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : গাজায় অমানবিকভাবে একতরফা নির্বিচারে বোমাবর্ষণের নিন্দা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র না করলেও কার্যত ইসরাইলের জনতা সেই কাজ শুরু করে দিয়েছে। পানীয় জল বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দিয়ে মানবেতর পরিস্থিতি তৈরি করে একতরফা ভাবে হামাস নিধনের নাম করে ফিলিস্তিনি জনতার উপরে একতরফা নির্বিচারে বোমা বর্ষণ করার পরও প্রায় আড়াইশো জন ইসরাইলিং নাগরিককে এখনো পর্যন্ত হামাসের কবল থেকে মুক্ত করতে পারেনি তা নিয়ে বিক্ষোভ দানা বেঁধেছে জনতার মাঝে।

ইসরাইলি সংবাদপত্রকে উদ্ধৃত করে রেডিও তেহরান খবর করে বলেছে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে তেল আভিবে। মনে রাখতে হবে হামাসের হামলার আগে পর্যন্ত ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবিতে দেশ জুড়ে বিক্ষোভ আন্দোলন চলছিল। মাঝে অতর্কিতে হামাসের আক্রমণ জনতার বিক্ষোভকে খানিকটা থামিয়ে দিয়েছিল।

Advertisement

এরপর বিগত দু সপ্তাহের বেশি সময় ধরে গাজা ভূখণ্ডে নির্বিচারে বোমাবর্ষণ করার পরেও ইসরাইলি নাগরিকদের হামাসের কবল থেকে উদ্ধার করতে না পারার কারণে ফের নতুন করে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে। এর আগে বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল মূলত বিচার ব্যবস্থাকে নিজের অনুকূলে আনার জন্য প্রধানমন্ত্রী যেভাবে সংসদে আইন তৈরি করতে চাইছিলেন তা নিয়ে। এবার প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলছে ইস্যু হচ্ছে নির্বিচারে বোমাবর্ষণ করার পরেও কেন ইসরাইল নাগরিকরা এখনও মুক্ত হলো না। ইসরাইলি জনতার অভিযোগ প্রধানমন্ত্রীর গোয়েন্দা ব্যর্থতা এবং প্রতিরক্ষা ব্যর্থতার কারণে হামাস হামলা করতে পেরেছে একই সঙ্গে তাদের নাগরিকরা বন্দী হয়েছে।

এদিকে যুদ্ধ পরিস্থিতির যেভাবে এগোচ্ছে তাতে আর যাই হোক এই যুদ্ধ যে অনেকদিন চলবে তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। একইসঙ্গে গাজায় স্থল অভিযান চালালে তার পরিণতি যে আরও খারাপ হবে সে বিষয়ে প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা ইতিমধ্যেই মত প্রকাশ করেছে। স্থল অভিযানের বিরুদ্ধে মত দিয়েছে স্বয়ং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এই পরিস্থিতিতে ইসরাইলি নাগরিকরা যতদিন বন্দী থাকবে ক্ষমাসের হাতে ততদিন যে বিক্ষোভ বাড়তে থাকবে সে ব্যাপারে ওয়াকিবহাল মহল একই মত প্রকাশ করছে। এই পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক মহল মনে করছে প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর পদত্যাগ শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ