জেলা 

অবৈধ স্ত্রীকে পেনশন! ডি আই পদ কী জমিদারি ভেবেছেন! বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশে অপসারিত দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডি আই

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : একই দিনে একই এজ্লাস একই বিচারপতি দুই জেলার দুজন ডিআইকে বদলির নির্দেশ দিলেন। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় যে এখনো সাধারন মানুষকে ইনসাফ পাইয়ে দেওয়ার লড়াই সামিল রয়েছেন তা বারবার প্রমাণ করছেন। প্রথম স্ত্রীকে বাদ দিয়ে দ্বিতীয় অবৈধ স্ত্রীকে পেনশন দেওয়ার কারণে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডিআইকে অবিলম্বে বদলির নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। আর এই নির্দেশ ঘিরে শিক্ষা মহলে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

সকালে মুশিদাবাদের ডিআইকে বদলে নির্দেশ দিয়েছিলেন আর্থিক বিকেল বেলায় দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডিআই সুজিত কুমার হাইতকে অপসারণের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

Advertisement

দক্ষিণ ২৪ পরগনার একটি স্কুলে শিক্ষকতা করতেন রবীন্দ্রনাথ হালদার। ২০১৯ সালে তাঁর মৃত্যু হয়। শিক্ষকের প্রথম পক্ষের স্ত্রী কুসুম হালদার। তাঁর দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী রয়েছেন। মামলাকারী কুসুমের অভিযোগ, ওই শিক্ষকের দ্বিতীয় পক্ষের বিয়ে বৈধ নয়। তা সত্ত্বেও দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রীকে পেনশন দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন ডিআই। আদালতেরও পর্যবেক্ষণ, রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় পক্ষের বিয়ে বৈধ নয়। অথচ পেনশনের টাকা ডিআই প্রথম স্ত্রীর পরিবর্তে দ্বিতীয় স্ত্রীকে দেওয়ার নির্দেশ দেন।

এর পরেই ডিআইয়ের উদ্দেশে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, ‘‘আদালতের নির্দেশ ছিল। তার পরেও এই ভুল কী ভাবে হয়? যেখানে আদালত বলছে দ্বিতীয় বিয়ে বৈধ নয়, সেখানে কী ভাবে দ্বিতীয় স্ত্রীকে পেনশন দেন?’’ মঙ্গলবারের শুনানিতে সশরীরে উপস্থিত ছিলেন ডিআই। তাঁকে বিচারপতি আরও বলেন, ‘‘ডিআই পদ কি জমিদারি ভেবেছেন।’’

স্কুল শিক্ষা দফতরের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারিকে বিচারপতির নির্দেশ, দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডিআই পদে অন্য কাউকে নিয়োগ করতে হবে। সুজিতের চাকরি বহাল থাকলেও তাঁকে এই পদে আর রাখা যাবে না। পাশাপাশি বিচারপতি এ-ও জানিয়েছেন, মঙ্গলবার আদালতে ডিআই যে ভঙ্গিতে কথা বলেছেন, তাতে তিনি অসন্তুষ্ট। আদালত এতে ক্ষুব্ধ হয়েছে। এই প্রসঙ্গে বিচারপতি বলেন, ‘‘ডিআই চালাকি করছেন। ওভারস্মার্ট (অতি চালাক)। তিনি এই ধরনের ভুল করেন কী ভাবে?’’ বিচারপতি মনে করেন, তাঁর অপসারণে বাকি ডিআইদের কাছে বার্তা যাবে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ