আন্তর্জাতিক 

নির্বাচনে কারচুপির দায়ে গ্রেফতার ডোনাল্ড ট্রাম্প

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : নির্বাচনে কারচুপির দায়ে বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করা হয় আমেরিকার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে। উল্লেখ্য,২০২০-র প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জর্জিয়া প্রদেশে রিপাবলিকান দলের প্রার্থী তথা তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছিল। ফল প্রকাশ হলে দেখা যায়, ১২ হাজার ভোটে জিতে গিয়েছেন বাইডেন। ট্রাম্প দাবি করছিলেন, গণনায় কারচুপি করা হয়েছিল। এর পর তাঁর বিরুদ্ধেই পাল্টা কারচুপির অভিযোগ আনা হয়। জর্জিয়া প্রদেশের ফলাফল পাল্টে দেওয়ার চেষ্টায় অভিযুক্ত করা হয় তাঁকে। জর্জিয়ার আদালতে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মোট ১৩টি অভিযোগ আনা হয়েছিল। তার মধ্যে রয়েছে জর্জিয়ার গুন্ডামি-বিরোধী র‌্যাকেটিয়ারিং আইন লঙ্ঘন করা, সরকারি কর্মকর্তার শপথ লঙ্ঘন এবং জালিয়াতির ষড়যন্ত্র। ট্রাম্পের সঙ্গেই অভিযুক্ত হন তাঁর দুই ঘনিষ্ঠ সহযোগী— হোয়াইট হাউসের তৎকালীন চিফ অফ স্টাফ মার্ক মেডোস এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের আইনজীবী রুডি জুলিয়ানি। তা ছাড়া, আমেরিকান বিচারবিভাগের তৎকালীন কর্তা জেফরি ক্লার্ক-সহ আরও ১৬ জনের বিরুদ্ধে একই রকম অভিযোগ আনা হয়েছে। তাঁদের সকলকেই আত্মসমর্পণের জন্য ২৫শে অগস্ট পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছিল। সেই নির্দেশ মেনেই বৃহস্পতিবার জর্জিয়ার ওই কারাগারে গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন ট্রাম্প।

বৃহস্পতিবার আটলান্টার ফুলটন কাউন্টির একটি কারাগারে গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। তবে গ্রেফতারির পর তাঁর একটি ছবি তোলার পর দু’লক্ষ ডলারের বন্ডের বিনিময়ে জামিন দেওয়া হয় আমেরিকার প্রাক্তন প্রেসিডেন্টকে। কারাগারে ট্রাম্পকে মিনিট কুড়ি কাটাতে হয়েছিল। এর পর তিনি কারাগার থেকে বেরিয়ে যান।

Advertisement

 

ট্রাম্প ছাড়া এই মামলার অন্যান্য অভিযুক্তরাও আত্মসমর্পণ করেছেন। তবে জেলে ট্রাম্পের তোলা ছবি নিয়ে ইতিমধ্যেই চর্চা শুরু হয়েছে। ফুলটন কাউন্টির শেরিফের অফিস থেকে প্রকাশিত ছবিতে তাঁকে গাঢ় নীল স্যুট, সাদা শার্ট এবং লাল টাই পরে ক্যামেরার দিকে তাকাতে দেখা গিয়েছে। চোখে মুখে বিরক্তির ছাপ স্পষ্ট। সমাজমাধ্যমে এই ছবিটিকে অনেকেই ‘ঐতিহাসিক’ ছবি বলে মন্তব্য করেছেন। কারণ, আমেরিকার সমস্ত প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের মধ্যে ট্রাম্পই প্রথম যিনি ফৌজদারি অভিযোগের মুখোমুখি হয়ে গ্রেফতার হলেন।

ট্রাম্পকে ফুলটন কাউন্টি কারাগারে বুকের কাছে একটি বোর্ড নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে বলা হয়েছিল। যেখানে তাঁর উচ্চতা ছ’ফুট তিন ইঞ্চি উল্লেখ করা ছিল। ওজন লেখা ছিল ৯৭ কিলোগ্রাম। চুলের রঙ হিসাবে লেখা ছিল সোনালি। তখনই সেই ছবি তোলা হয় কারাগার কর্তৃপক্ষের তরফে।

গ্রেফতারির পর আবার জেল থেকে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় ট্রাম্প বলেন, “আমেরিকার কাছে অত্যন্ত দুঃখজনক দিন। আমি কোনও ভুল করিনি। বিচারব্যবস্থার সঙ্গে প্রতারণা করে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে।’’

প্রাক্তন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্টের গ্রেফতারির খবর পয়ে তাঁর অনেক সমর্থক আটলান্টার ওই কারাগারের বাইরে জড়ো হয়ে স্লোগান দিতে থাকেন। তথ্য সূত্র: ডিজিটাল আনন্দবাজার।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ