কলকাতা 

স্বপ্নদ্বীপের মৃত্যু থেকে শিক্ষা নিয়ে ‘র‌্যাগিং-বিরোধী কমিটি’ গঠনে উদ্যোগী রাজ্যপাল

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : যাদবপুরের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে র‌্যাগিং বিরোধী কমিটি গঠনে উদ্যোগী হলেন রাজ্যপাল তথা রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির আচার্য সিভি আনন্দ বোস। শুক্রবার তিনি যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন অধ্যাপককে ডেকে পাঠিয়েছিলেন। সেখানে একটি বৈঠকে রাজ্যপাল জানান, শুধু যাদবপুর নয়, রাজ্যের সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে একটি ‘র‌্যাগিং-বিরোধী কমিটি’ তৈরি করা হবে। ওই কমিটির নেতৃত্বে থাকবেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্বর্তিকালীন উপাচার্য তথা কর্নাটক হাই কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি শুভ্রকমল মুখোপাধ্যায়। ওই কমিটি সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাগিং সম্পর্কিত অভিযোগ শুনবে। র‌্যাগিং আটকাতে ওই কমিটি নীতি নির্ধারণ করবে। যে হেতু এই মুহূর্তে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থায়ী উপাচার্য নেই, তাই আচার্য হিসাবে রাজ্যপাল নিজে যাদবপুরকাণ্ডে এই পদক্ষেপ করেছেন।

ওই বৈঠকে ছিলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি (জুটা)-র প্রেসিডেন্ট তথা পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক পার্থপ্রতিম রায়। তিনি এই আলোচনা নিয়ে বলেন, ‘‘আচার্য হিসাবে রাজ্যপাল বোস শুধু যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় নয়, অন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকেও ডেকেছিলেন। সেখানে প্রথম বর্ষে ভর্তি হওয়া পড়ুয়াদের র‌্যাগিং নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, অধ্যাপকদের নিয়ে কমিটি গঠন করতে বলেছেন। কমিটির মাথায় থাকবেন রবীন্দ্রভারতীর অন্তর্বর্তিকালীন উপাচার্য।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘আমরা আমাদের তরফে জানিয়েছি, বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘অ্যান্টি-র‌্যাগিং স্কোয়াড’ আছে। কমিটি আছে। কিন্তু কোনও প্রস্তাব এলে তা কার্যকর করবেন কে? না রয়েছেন উপাচার্য, না আছেন সহ-উপাচার্য। কোনও স্থায়ী ডিন-ও নেই। ফলত, কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া যাচ্ছে না। এই সব সমস্যার কথা জানিয়েছি।’’

Advertisement

বুধবার গভীর রাতে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের মেন হস্টেলের এ-২ ব্লকের নীচ থেকে বিবস্ত্র ও অচৈতন্য অবস্থায় পাওয়া যায় বাংলা অনার্সের প্রথম বর্ষের ছাত্র স্বপ্নদীপ কুণ্ডুকে। বৃহস্পতিবার ভোরে হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়। স্বপ্নদীপের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ উঠেছে। তাঁর বাবা রামপ্রসাদের অভিযোগ, ছেলের মৃত্যুর জন্য হস্টেলের সিনিয়রেরাই দায়ী। তাঁর কথায়, ‘‘ওরা (সিনিয়ররা) হয়তো ভেবেছে, এই ছেলে (স্বপ্নদীপ) এখান থেকে চলে গেলে সব ফাঁস হয়ে যাবে। ওই জন্য ওকে মেরে ফেলল!’’ শুক্রবার তিনি সৌরভ চৌধুরী নামে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ