কলকাতা 

আরএসএস বিজেপির সমন্বয় বৈঠকে দিল্লিতে সুকান্ত শুভেন্দুকে তলব! রহস্য কী?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : পঞ্চায়েত নির্বাচনের শেষ হওয়ার পর হঠাৎই দিল্লিতে তলব করা হলো বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার এবং বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে। বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের এই তলব নিয়ে ইতিমধ্যে বাংলার সংবাদ মাধ্যমে আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়ে গেছে অনেকে বলতে শুরু করেছে নির্বাচনের বিপর্যয়ের জন্যই বিজেপি নেতাদের তলব করা হয়েছে দিল্লিতে। খুব শীঘ্রই নাকি বিজেপি দলের রাজ্য স্তরে ব্যাপক পরিবর্তন হবে।

বাংলার সংবাদমাধ্যম এমনভাবে বিষয়টিকে সামনে আনার চেষ্টা করছিল যেন মনে হচ্ছিল রাজ্যের বিজেপি নেতাদের পরিবর্তন অবশ্যম্ভাবী কিন্তু সংবাদমাধ্যমে দুর্বলতা অন্য জায়গায় ছিল বলে আমাদের মনে হয়েছে তবে আসল ঘটনা হলো সুকান্ত এবং শুভেন্দু কে দিল্লিতে দ্রুত ডেকে পাঠিয়েছে আরএসএস কর্তারা। জানা গেছে আগামীকাল সোমবার দিল্লিতে বিজেপির বাছাই করা বেশ কিছু নেতার নেত্রী সঙ্গে আরএসএসের জাতীয় স্তরের নেতারা বৈঠকে বসবেন সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে আগামী লোকসভা নির্বাচনে কি হতে পারে কি হবার সম্ভাবনা রয়েছে। একই সঙ্গে ২০২৫ সালে আর এস এস এর শতবর্ষ পালিত হবে এই শতবর্ষ কিভাবে পালন করা হবে, দেশ জুড়ে তা নিয়েও আগামীকালের বৈঠকে আলোচনা হতে পারে।

রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ একটি সামাজিক সংগঠন এর কোন রাজনৈতিক ভিত্তি নেই বলে এই সংগঠনের নেতারা দাবি করলেও কিন্তু একথা সত্য এই সংগঠনের থেকে একজন ব্যক্তি বিজেপির দলের সাংগঠনিক সাধারণ সম্পাদক হয়ে থাকেন জাতীয় স্তরে যেমন হয় রাজ্য স্তরেই তেমনভাবে হয়ে থাকে। সুতরাং আগামীকালের বৈঠকে বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী যেমন থাকবেন বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তিনিও এই বৈঠকে যোগ দেবেন। এই বৈঠকে যোগ দিবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক ও একইসঙ্গে আরএসএস নেতারা এই বৈঠকে থাকবেন ২০২৪ এর লোকসভা নির্বাচনের আগে আরএসএস সরাসরি প্রকাশ্যে বিজেপি তাদের সঙ্গে বৈঠক করে লোকসভার ভিসা নির্ধারণ করবেন বলে জানা যাচ্ছে। অন্যদিকে রাজ্যের যারা বিজেপির নেতা রয়েছেন তাদের কাছ থেকে আরএসএস নেতারা এখানকার গ্রাউন্ড রিয়েলিটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করবেন যদি তারা বুঝতে পারেন এই রাজ্যে বিজেপি আসার সম্ভাবনা উজ্জ্বল সেক্ষেত্রে বিজেপি এবং আরএসএস তার পলেসি পরিবর্তন করতে পারে। তবে সবকিছুই নির্ভর করছে আগামীকালের বৈঠকে একথা স্বীকার করতে হবে জাতীয় স্তরের আরএসএস নেতারা যেভাবে পশ্চিমবাংলা কে গুরুত্ব দিতে শুরু করেছে তাতে আর যাই হোক অন্তত মমতার কাছে শুভ বার্তা নয় বলেই মনে করা হচ্ছে।

কারণ বিজেপি নেতারা নানা কথা বললেও আরএসএসের একটা অংশ যে তৃণমূল কংগ্রেসকে সমর্থন করে তার বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে আগামীকালের বৈঠকে যদি আরএসএসের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব এই বার্তা রাজ্য নেতৃত্ব কে দেয় তৃণমূলের সঙ্গে কোন গোপনতা রাখা যাবে না তাহলে আগামী দিনে এই রাজ্যে তৃণমূলকে যে বড় সংকটের মুখে পড়তে হবে তা বলাই বাহুল্য মাত্র।

জানা গেছে, আজ রবিবার আরএসএস কর্তাদের ডাকে সুকান্ত মজুমদার দিল্লি চলে যাবেন আগামীকাল সোমবার শুভেন্দু অধিকারী এবং সাংগঠনিক দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ পদাধিকারী সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) অমিতাভ চক্রবর্তী। কোথায় কখন এই বৈঠক শুরু হবে, সে ব্যাপারে রাজ্যের বিজেপি বা আরএসএস নেতারা মুখ খুলতে নারাজ। তাঁরা বলছেন, এটা একেবারেই রুটিন এবং অভ্যন্তরীণ বৈঠক। তবে লোকসভা নির্বাচনের আগে এই বৈঠক ঘিরে রাজনৈতিক মহলে নানা জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে।

আরএসএস সূত্রে জানা গিয়েছে, এই ধরনের বৈঠক নিয়মিতই হয়ে থাকে। সংগঠনের ভাষায় এটিকে ‘সমন্বয় বৈঠক’ বলা হয়। আগে গোটা দেশের জন্য একটিই বৈঠক হত। সেখানেই সব রাজ্যের বিভিন্ন সংগঠনের প্রধানরা যোগ দিতেন। এখন সংগঠন বড় হয়ে যাওয়ায় প্রতিটি রাজ্যের জন্য আলাদা আলাদা বৈঠক হয়। অনেক সময়ে এক দিনে একাধিক রাজ্যের নেতাদেরও ডাকা হয়। সোমবারের বৈঠকে অন্য কোনও রাজ্যের নেতাদের ডাকা হয়েছে কি না তা জানা যায়নি।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ