কলকাতা 

পঞ্চায়েত নির্বাচনের নির্ঘণ্ট ঘোষণার পরেই শাহের দরবারে শুভেন্দু কেন ? জানতে হলে ক্লিক করুন

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : বৃহস্পতিবার পঞ্চায়েত নির্বাচনের নির্ঘণ্ট ঘোষণা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে দিল্লিতে দ্রুত তলব করেন দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। আজ শুক্রবার খুব সকালেই শুভেন্দু অধিকারী দিল্লি চলে যান।  দিল্লির নর্থ ব্লকে শাহের দফতরে ৪৫ মিনিট ধরে দুজনে একান্তে বৈঠক করেন বলে সূত্রের খবর। এই বৈঠকে কি আলোচনা হয়েছে তা এখনো পর্যন্ত জানা না গেলেও তবে এটা ঠিক হঠাৎ পঞ্চায়েত ভোট ঘোষণা করার ফলে পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে যে আলোচনা হয়েছে তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। বিজেপি দলের পক্ষ থেকে এই রাজ্যে ৩৫৫ ধারা জারির কথা বার বার বলা হচ্ছে মনে করা হচ্ছে পঞ্চায়েত নির্বাচনকে সামনে রেখে এটাই কার্যকরী করতে পারে কেন্দ্র। কারণ আর যাই হোক এই পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শাসকদলের গোষ্ঠিকোন্দল থেকে শুরু করে শাসক বিরোধী দলের মধ্যে যে অশান্তি হবে তা একপ্রকার স্বীকার করতেই হবে। আর এই অশান্তি হলে রাজ্য সরকার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না এই অজুহাত দেখে ৩৫৫ ধারা এ রাজ্যে জারি করতে পারে কেন্দ্র।

ইতিমধ্যে রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসের সঙ্গে সম্পর্ক রাজ্য সরকারের খুব একটা ভালো নেই। এই পরিস্থিতিতে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ে রিপোর্ট রাজ্যপাল যে সরকারের অনুকূলে দেবেন তা বলায় বাহুল্য মাত্র। অন্যদিকে রাজ্য নির্বাচন কমিশন যেভাবে হঠাৎ করে পঞ্চায়েত নির্বাচন ঘোষণা করেছে সেটাও কতটা সঠিক হয়েছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে। তবে নির্বাচন কমিশন যেহেতু সাংবিধানিক সংস্থা তাই তা নিয়ে হয়তো খুব বেশি প্রশ্ন না উঠলেও কলকাতা হাইকোর্ট ইতিমধ্যেই পর্যবেক্ষণে বলেছে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় সীমা অত্যন্ত কম দেওয়া হয়েছে এবং নির্বাচন শেষ করতে করতে যেন তাড়াতাড়ি করা হচ্ছে এর নেপথ্যে কি কারণ তা জানতে চেয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট।

Advertisement

এই পরিস্থিতিতে শুভেন্দু অমিত শাহের গোপন বৈঠক নিঃসন্দেহে রাজ্য রাজনীতিতে বিশেষ চমক তৈরি করতে পারে বলে রাজনৈতিক মহল মনে করছে। তবে বিজেপি যেসব জেলায় শক্তিশালী সেসব জেলায় যদি শাসক দল পুলিশ এবং প্রশাসনকে দিয়ে অশান্তি বাধানোর চেষ্টা করে সেক্ষেত্রে কেন্দ্র সরকার যে চুপ করে বসে থাকবে না এটা স্বীকার করতেই হবে। আর তখনই হয়তো কেন্দ্র ৩৫৫ ধারা জারি করার দিকে এগিয়ে যেতে পারে। পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রাক্কালে কোনো অশান্তি হলে সেই অশান্তিকে সামনে রেখে যদি ৩৫৫ ধারা কেন্দ্র জারি করে দেয় তাহলে সে ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের কিছু করার থাকবে না বলেই বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

আর এই বৈঠকের মধ্যেই উঠে আসতে পারে সাম্প্রতিক কেন্দ্রীয় এজেন্সি গুলির কাজকর্ম পর্যালোচনা। ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় এজেন্সির হাতে গ্রেফতার হয়েছেন কালীঘাটের কাকু থেকে শুরু করে জেরার মুখে পড়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায় পরবর্তীকালে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কেও তলব করেছে ইডি। এই প্রেক্ষাপটে বিজেপি দল কি করতে পারে। তা নিয়েও হয়তো শুভেন্দুর সঙ্গে অমিত শাহের বৈঠকে আলোচনা হয়েছে।

 


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ