কলকাতা 

“৭৩ জন বিধায়ক তাঁর সঙ্গে আছেন বলেছিলেন,সরকার করে দেব বলেছিলেন, কিন্তু এখনও কথা রাখতে পারেননি খোকাবাবু, তাই সিবিআই ও ইডি’র চাপ বাড়ছে তাঁর উপর” নাম না করে অভিষেককে বেনজির আক্রমণ অধীরের

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : নাম না করে সরাসরি তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কে নিশানা করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী। তিনি এদিন শিক্ষক নিয়োগ থেকে গরু পাচার সব ইস্যুতেই নাকি অভিষেকের দেওয়া তথ্য থেকেই তৃণমূল নেতারা জেলে আছেন বলে অভিযোগ করেন। তিনি খোকাবাবু বলে অভিষেককে অভিহিত করে বলেন তিনি নাকি বিজেপিকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তৃণমূলের ৭৩ জন বিধায়ককে ভাঙ্গিয়ে সরকার ভেঙে দেবেন সেটা সম্ভব হয়নি।

শুক্রবার অধীর দাবি করেন, “২০২১ সালের ৯ সেপ্টেম্বর ইডিকে তথ্য দিয়ে এসেছিল খোকাবাবু। সেই তথ্য অনুযায়ী তৃণমূলের একের পর এক নেতা গ্রেফতার হচ্ছেন। সেদিন খোকাবাবু ৭৩ জন বিধায়ক তাঁর সঙ্গে আছেন বলেছিলেন। সরকার করে দেব বলেছিলেন। কিন্তু এখনও কথা রাখতে পারেননি খোকাবাবু। তাই সিবিআই ও ইডি’র চাপ বাড়ছে তাঁর উপর।” তিনি আরও বলেন, “আমার কথা আজকে শুনলে মনে হবে ঈর্ষা থেকে বলছি। আজ নয়তো কাল প্রমাণ পাবেন।”

Advertisement

সদ্যই ঘোষণা হয়েছে পঞ্চায়েত ভোটের দিনক্ষণ। সে প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়েও নাম না করে অভিষেককে দুষছেন অধীর। তাঁর দাবি, “ভোট পরিচালিত হবে খোকাবাবুর অফিস থেকে। কমিশনের অফিস থেকে নয়। খোকাবাবুর অফিস থেকে যা নির্দেশ আসবে তাই করবে কমিশন।” অধীর চৌধুরীর বিস্ফোরক দাবি নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই বিতর্ক দানা বেঁধেছে। কীসের ভিত্তিতে এমন দাবি করলেন অধীর, তৃণমূলের তরফে স্বাভাবিকভাবেই সে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। যদিও সে প্রসঙ্গে আর অধীরের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

অধীর চৌধুরীর এই ধরনের মন্তব্য কে কেন্দ্র করে রাজ্যজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে সত্যিই কি খোকাবাবু সরকার ভাঙতে চেয়েছিলেন ?  নাকি অধীর বাবু যা বলছেন সবটাই ভিত্তিহীন। পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রাক্কালে অধীরের এই বক্তব্যকে ঘিরে রাজ্য রাজনীতিতে বেশ কয়েকদিন জল খোলা হবে তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই।

সৌজন্যে ডিজিটাল সংবাদ প্রতিদিন।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ