কলকাতা 

সোমেন মিত্রের নেতৃত্বের প্রতি আস্থা দেখালেন রাজ্য ও জেলা কংগ্রেসের সব নেতা

শেয়ার করুন
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বুলবুল চৌধুরি : ১৩ ও ১৪ নভেম্বর প্রদেশ কংগ্রেস ভবনে আয়োজিত দুইদিন ব্যাপী গুরুত্বপূর্ণ সভায় দলের সব নেতা উপস্থিত ছিলেন । এতদিন যাঁরা প্রদেশ কংগ্রেস অফিসকে এড়িয়ে চলতেন তাঁরাও শেষ পর্যন্ত এই বৈঠকে যোগ দিয়েছেন । মঙ্গলবার অর্থাৎ ১৩ নভেম্বর ছিল উত্তরবঙ্গের জেলা কংগ্রেস নেতাদের বৈঠক । এই বৈঠকে উত্তরবঙ্গের সব কংগ্রেস নেতাই বর্তমান প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রের প্রতি আস্থা ঞ্জাপন করেন , তাঁর নেতৃত্বে রাজ্যে আবার কংগ্রেস ঘুরে দাঁড়াবে এই প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন জেলার কংগ্রেস নেতারা । অনেকে আবার এও বলেছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির দায়িত্বে যিনি আছেন তিনি কর্মীদের সুখে-দুখে থাকবেন এনিয়ে কোনো সন্দেহ নেই ।

উল্লেখ্য, সোমেন মিত্র প্রদেশ কংগ্রেসের দায়িত্ব পাওয়ার পর এই প্রথম সব জেলার কংগ্রেস নেতাদের নিয়ে সাংগঠনিক বৈঠক করলেন। এই বৈঠকে গোষ্ঠীভুলে সবাই যোগ দিয়েছেন । একই সঙ্গে বহুদিন পর প্রদেশ কংগ্রেস অফিসে দেখা গেছে বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নানকে । তিনি এতদিন পারত পক্ষে প্রদেশ কংগ্রেস দপ্তরে যেতেন না । সোমেন মিত্র প্রদেশ কংগ্রেসের দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনি এখন নিয়মিত বিধানভবনে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে ।

প্রদেশ কংগ্রেস সূত্রে খবর, এই বৈঠকে যোগ দিয়ে মালদহ জেলা কংগ্রেসের সভানেত্রী ও সাংসদ মৌসম বেনজির নূর জানিয়ে দিয়েছেন , সোমেন মামাকে ছেড়ে তিনি অন্য কোনো দলে যাবেন না। তিনি কংগ্রেসে আছেন , কংগ্রেসেই থাকবেন । কংগ্রেস ছাড়া অন্য কোনো দলে তিনি যাবেন না।

অন্যদিকে, বুধবার ছিল দক্ষিনবঙ্গের কংগ্রেস নেতাদের সঙ্গে বৈঠক । এই বৈঠকে যোগ দিয়ে প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরি জানিয়ে দেন তিনিও কংগ্রেস ছাড়ছেন না । সোমেন মিত্রের নেতৃত্বে তিনি কংগ্রেসের সৈনিক হিসেবে কাজ করে যাবেন ।

মঙ্গলবার প্রথম পর্যায়ে কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং পাহাড় ও দার্জিলিং সমতল, দক্ষিণ দিনাজপুর, উত্তর দিনাজপুর, মালদা, বীরভূমের দলীয় নেতৃত্বদের নিয়ে বৈঠক করেন প্রদেশ নেতারা। দ্বিতীয় পর্যায়ের বৈঠকে ছিলেন উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা এক, হুগলি, হাওড়া ও বর্ধমান পশ্চিমের নেতারা। সূত্রের খবর, এই বৈঠকে জেলা নেতৃত্বের একটা বড় অংশ জানিয়ে দেন, তাঁরা তৃণমূলের সঙ্গে জোট চান না। প্রয়োজনে সিপিএমের সঙ্গে জোট মানা যেতে পারে। তবে এ বিষয়ে কোনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। পরবর্তীকালে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে প্রদেশ কংগ্রেস। তৃণমূল তাঁদের সংগঠনে “ভাঙন” ধরিয়েছে, সুতরাং তাদের সঙ্গে জোট করার বিপক্ষে অনেকেই মত দিয়েছে ।

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র অবশ্য জানিয়েছেন, কর্মীদের ইচ্ছা মর্যাদা দিয়ে এআইসিসি জোটের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে । বৈঠকে উপস্থিত এআইসিসির প্রতিনিধি গৌরব গগই সাংবাদিকদের বলেছেন, রাজ্য নেতৃত্বকে এড়িয়ে কোনো কাজ এআইসিসি করবে না ।

অন্যদিকে, কংগ্রেস নেতা অরুণাভ ঘোষ বলেছেন , সোমেন মিত্র সবাইকে নিয়ে চলার চেষ্টা করছেন । তাঁর এই উদ্যোগের পাশে সকলেই থাকবেন । কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন সাংসদ সরদার আমজাদ আলী বলেন, কংগ্রেস হল পরিবার । এখানে যৌথ নেতৃত্বের মধ্যে দিয়ে কংগ্রেসের সংগঠনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে । সেই কাজটা সোমেন মিত্র করে চলেছেন । তার ফল মিলতে শুরু করেছে, রাজ্যের সব কংগ্রেস নেতা ও কর্মী সোমেনের উপরই আস্থা ঞ্জাপন করছেন। আর এই সংহতি টিকে থাকলে এই রাজ্যে কংগ্রেস আবার তার হৃত-গৌরব ফিরে পাবে ।

 

 

 

 

 

 

 

 


শেয়ার করুন
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment