দেশ 

চলে গেলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনন্ত কুমার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রয়াত হলেন কেন্দ্রীয় রাসায়নিক, সার এবং সংসদ বিষয়ক  মন্ত্রী অনন্ত কুমার। বেঙ্গালুরুর একটি হাসপাতালে রাত ২টো-র সময় তিনি প্রয়াত হন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৫৯ বছর। তিনি ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। বেশ কয়েক মাস ধরেই গুরুতর অসুস্থ ছিলেন। শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য তাঁর দেহ রাখা থাকবে বেঙ্গালুরুর ন্যাশনাল কলেজে।

১৯৫৯ সালের ২২ জুলাই বেঙ্গালুরুতে জন্মগ্রহণ করেন অনন্ত কুমার। কেএস আর্টস কলেজ থেকে কলা বিভাগে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে কর্নাটক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি আইন ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৮৭ সালে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগ দেওয়ার আগে ১৯৮৫ সালে তিনি ছাত্র সংগঠন এবিভিপি-র রাজ্য সম্পাদকসহ অন্য পদে নির্বাচিত হন। পরে সর্বভারতীয় সম্পাদকও হন। বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার পর ১৯৯৫ সালে অনন্ত কুমার কেন্দ্রীয় সম্পাদক হিসেবে নিযুক্ত হন। ১৯৯৬ সালে প্রথমবার মতো লোকসভায় সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত হন বেঙ্গালুরু দক্ষিণ আসন থেকে। রেল ও শিল্প মন্ত্রকের অধীনে বিভিন্ন কমিটির সদস্যও ছিলেন। ১৯৯৮ সালে এনডিএ সরকারের আমলে তাঁকে অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রকের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রাজনাথ সিং তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক ব্যক্ত করে বলেছেন, “আমার বরিষ্ঠ সহকর্মী ও বন্ধু অনন্ত কুমারজির প্রয়াণে আমি অত্যন্ত মর্মাহত ও দুঃখিত। তিনি সংসদের অত্যন্ত মর্যাদাপূর্ণ  সদস্য ছিলেন। যিনি বিভিন্নভাবে দেশকে সেবা করেছেন। মানুষের কল্যাণে তাঁর আবেগ ও নিষ্ঠা প্রশংসনীয় ছিল। তাঁর পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি।”

কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামীও অনন্ত কুমারের মৃত্যুকে শোকপ্রকাশ করেছেন। তিনি শোকবার্তায় বলেছেন, “আমি আমার বন্ধুকে হারালাম। তিনি মূল্যবোধের রাজনীতি করতেন। সাংসদ ও মন্ত্রী হিসেবে তিনি উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করেছি। ঈশ্বর যেন তাঁর পরিবারকে এই ক্ষতি বহন করার শক্তি দেন।” বিজেপি-র সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ বলেন, “অনন্তজি দারুণ প্রশাসক ছিলেন। তিনি দক্ষতার সঙ্গে নানা মন্ত্রকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁর মৃত্যু বিজেপি ও ভারতীয় রাজনীতিতে শূন্যস্থান তৈরি করবে। যা দ্রুত ভরাট হবে না। ঈশ্বর যেন তাঁর পরিবার ও সমর্থকদের এই ক্ষতি বহন করার শক্তি দেন।”

 

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় অনন্ত কুমারের শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। আজ দেশজুড়ে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে। অন্যদিকে, তাঁর মৃত্যুতে কর্ণাটকে তিনদিন শোকপালনের কথা ঘোষণা করেছে কর্ণাটক সরকার। আজ রাজ্যে সরকারি দপ্তর বন্ধ থাকবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment