দেশ 

রামের নামে ২০১৯-এর লড়াই লড়তে চায় বিজেপি, মন্দির না হোক ; বিশাল রামমূর্তি গড়ে নয়া উন্নয়নের দিশারি হতে চান মোদী-যোগীরা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি নির্দেশ মোতাবেক বাবরি মসজিদ মামলার ফয়সালা হওয়ার সম্ভাবনা এখনই নেই । আর বিজেপি এককভাবে সংসদে বিল পাশ করে রাম-মন্দির নির্মাণ করতে পারবে না । ফলে রাম মন্দিরের জিগির তোলা যেতে পারে কিন্ত রাম মন্দির তৈরি করা যে সহজ কাজ নয় তা মোদী অমিত এবং যোগী বুঝে গেছেন । অতএব দেশের মানুষের আয়ের টাকায় বড় একটা রামমূর্তি গড়া যেতে পারে । মোদী-যোগীরা এটা বুঝতে পেরেই আপাতত রামমূর্তি গড়তে উদ্যোগী হয়েছেন ।

আর আসন্ন লোকসভা ভোটের মুখে উগ্র হিন্দুত্বের পথেই হাঁটতে চলেছে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী আদিত্যনাথ যোগী । তিনি মঙ্গলবারই ফৈজাবাদ জেলার নাম পাল্টে অযোধ্যা করার কথা ঘোষণা করেছেন। ২৪ ঘণ্টা না কাটতেই বুধবার ফের যোগী জানালেন, অযোধ্যায় রামের বিশালাকার মূর্তি তৈরি হবে।

মূর্তি বসানোর জন্য সম্ভাব্য দু’টি জায়গাও এদিন পরিদর্শন করেন আদিত্যনাথ। কট্টরপন্থীদের রামমন্দির তৈরির জিগিরে সুর মিলিয়ে তিনি মন্তব্য করেছেন, ‘‘রাম মন্দির থা, হ্যায় অউর রহেগা।’’

রাম-মূর্তির জন্য সম্ভাব্য দু’টি জমিও পরিদর্শন করেন তিনি। এই সব কর্মসূচির ফাঁকেই সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‘‘অযোধ্যায় বিশাল একটি রামমূর্তি তৈরি করা হবে, যা পর্যটনের কেন্দ্রস্থল হিসাবে গড়ে উঠবে। তবে মূর্তি মন্দিরের ভিতরে রাখা থাকবে। এই মূর্তিই হবে অযোধ্যার পরিচয়বাহক। জমি নির্ধারিত হওয়ার পর সবিস্তার পরিকল্পনা তৈরি করা হবে।’’  তবে বুধবার সাংবাদিকরা যোগীকে রামমন্দির নির্মাণ প্রসঙ্গে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন,‘‘অযোধ্যায় রামমন্দির ছিল, আছে, থাকবে। তবে সংবিধান ও আইন মেনেই সব করা হবে। অযোধ্যার মানুষ এবং হিন্দু সংগঠনগুলি আমাদের সঙ্গে আছেন।’’

শুধু রাম মন্দির নির্মাণ নয়,কিংবা রামের মূর্তি গড়েও যোগী তাঁর দায়িত্ব শেষ করছেন না । তিনি এবার রামের নামে বিমানবন্দরও নির্মাণ করতে চলেছেন বলে জানা গেছে । রামায়ণে রামের বাবা রাজা দশরথের নামে একটি মেডিক্যাল কলেজ তৈরির ঘোষণাও করেন যোগী।  আসলে দেশ জুড়েই কেন্দ্রবিরোধী হাওয়া জোরদার। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ব্যাখ্যা, এই পরিস্থিতিতে ফের হিন্দুত্ব তথা রাম-রাজনীতির পালে হাওয়া দিয়েই ফের ভোট বৈতরণী পার হতে চাইছে পদ্ম শিবির।

স্বচ্ছ ভারত গড়ার যে স্বপ্ন মোদীজি দেশবাসীকে দেখিয়েছিলেন তার বাস্তবায়ন যে তিনি করতে পারেন তা তিনি ভালো করেই জানেন । তাই রাম ঞ্জান রাম ধ্যান/ রাম চিন্তামণি/ রাম নামেই পার করিব ২০১৯ । এই পথে চলতে চাইছেন মোদী-যোগীরা । এবার রুটি-রুজির প্রশ্ন না ধর্মের কে জিতবে ২০১৯-এ তার প্রমাণ মিলবে । তবে এ কথা বলা যায় মোদীর উন্নয়ণের শ্লোগান সব কা সাথ , সব কা বিকাশ শুধু ব্যর্থ নয়, মানুষের স্বার্থে সামান্যতম উন্নয়ন করতে পারেনি । সুতরাং রামের শরণ ।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment