কলকাতা 

বিজেপি নকল গেরুয়া ; ওরা শুধু ধর্ম-ধর্ম করে, ধর্মের জন্য কিছু করে না : মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : `শুধু গেরুয়া পরলেই সাধু হয় না। মন্ত্রী হবে, এনজয় করবে, আবার গেরুয়াও হবে। তা কি হয়!` দক্ষিণশ্বরে কলকাতার প্রথম স্কাইওয়াক উদ্বোধন করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপিকে কটাক্ষ করে এই মন্তব্য করেন। তিনি এদিন বিজেপিকে গেরুয়া ভেকধারী বলেও তোপ দাগলেন । তিনি আরও বলেন, বিজেপি নকল গেরুয়া। ওরা শুধু ধর্ম-ধর্ম করে, ধর্মের জন্য কিছু করে না।

মূলত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে দক্ষিণেশ্বরর মা ভবতারিণীর মন্দির যাওয়ার জন্য স্কাইওয়াক তৈরি করা হয়েছে । এদিন স্কাইওয়াকের প্রধান ফটক উন্মোচন করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্কাই ওয়াক দিয়ে হেঁটে পৌঁছন মা ভবতারিণী মন্দিরে। এরপর সে মন্দিরে পুজো দিয়ে মূল মঞ্চে ফিরে আসেন । সেখানে তিনি বক্তব্য রাখতে গিয়ে বর্ণনা দেন ,কোন প্রেক্ষাপটে দক্ষিণেশ্বর মন্দিরে স্কাইওয়াক নির্মাণ হল। কোথায় কী বাধা এসেছিল, সেসব বাধা তিনি কীভাবে পেরিয়ে গিয়ে এই কাজ করা সম্ভব হয়েছে । মুখ্যমন্ত্রীবলেন, শুধু সদিচ্ছা থাকলেও অনেক কঠিন কাজ করা যায়। আমরা বহু বাধা-বিপত্তি ঠেলে দক্ষিণেশ্বর মন্দিরের প্রবেশপথে এই স্কাইওয়াক নির্মাণ করতে পেরেছি। এজন্য মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও দক্ষিণেশ্বর অছি পরিষদের সম্পাদক কুশল চৌধুরীকে বিশেষ অভিনন্দন জানান তিনি। শ্রদ্ধা জানান হাইকোর্টের বিচারপতিদের। কারণ বিচারপতিরা স্কাইওয়াক নির্মাণে সবুজ -সংকেত প্রদান করেছিল।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, শীঘ্রই লাইট ও সাউন্ড সিস্টেম হয়ে যাবে। সেইসঙ্গে তিনি বলেন, গর্বের স্কাইওয়াক হল। সেখানে আমার হকারভাইদের জায়গা করে দেওয়া হয়েছে। সাতদিনের মধ্যেই তাঁরা যাতে দোকান পায়, সেই ব্যবস্থাও করা হবে। হকার ভাইদের কাছে আমার আর্জি এই স্কাইওয়াককে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। এরপরই তিনি স্কাইওয়াক পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য কামারহাটি পুরসভার একশো দিনের কাজের ৫০ জন শ্রমিককে মোতায়েন করার নির্দেশ দেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে।

সেইসঙ্গে বলেন স্কাইওয়াক রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে। এবং এদিন দক্ষিণেশ্বরে পূর্ণাঙ্গ থানা করার পরিকল্পনার কথাও জানান এদিন দক্ষিণেশ্বরের স্কাইওয়াকের নামকরণও করে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই স্কাইওয়াকের নামকরণ হয় দক্ষিণেশ্বর রানি রাসমণি স্কাইওয়াক। রানি রাসমণির নামে আরও কিছু পরিকল্পনা তাঁর রয়েছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি আরওবলেন, দক্ষিণশ্বর-বেলুড়মঠ আন্তর্জাতিক পর্যটনকেন্দ্র। ধর্মীয় পর্যটন কেন্দ্র। রামকৃষ্ণদেব, বিবেকানন্দের প্রতিষ্ঠা ক্ষেত্র। তাই তাঁদের হিন্দু ধর্ম মেনেই সর্বধর্ম সমন্বয়ের বার্তা দেন মমতা। বলেন, দুদিনের পার্টির হিন্দুধর্ম কেউ মানবে না, বাংলার মানুষ মানে রামকৃষ্ণ-বিবেকানন্দের হিন্দু ধর্ম।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment