দেশ 

মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস-বিজেপির দলবদলের খেলায় কংগ্রেসকে বড় আঘাত বিজেপি-র

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : কংগ্রেস মধ্যপ্রদেশে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ চৌহানের ঘরে হানা দিয়ে তাঁর শ্যালক সঞ্জয় সিংকে কংগ্রেসে যোগদান করিয়ে বিজেপিকে চাপে ফেলেছে । এই ঘটনার ২৪ ঘন্টা কাটতে না কাটতেই এবার বিজেপি কংগ্রেসের ঘরে হানা দিল । কংগ্রেসের এক প্রভাবশালী নেতা ও প্রাক্তন সাংসদপ্রেমচাঁদ গুড্ডুকে দলে নিল বিজেপি। দলিত নেতা প্রেমচাঁদকে শেষমুহূর্তে পেয়ে শুধু শূন্যস্থান পূরণই হবে না, মালওয়া এলাকায় প্রভাব বিস্তারেরও সুযোগ মিলবে বলে মনে করছে বিজেপি। প্রেমচাঁদ হেভিওয়েট কংগ্রেস নেতাদের মধ্যে অন্যতম। তার উপর তিনি দলিত নেতা। তাঁকে পেয়ে দলিত ভোটেও থাবা বসাতে পারবে বিজেপি। ফলে মুখ্যমন্ত্রীর শ্যালক শত্রু শিবিরে পাড়ি জমালেও প্রেমচাঁদকে পেয়ে বিজেপি শিবিরে খুশির হাওয়া। কংগ্রেসের বিরুদ্ধে প্রেমচাঁদ গুড্ডুকে হাতিয়ার করছে বিজেপি।প্রেমচাঁদের কাছের মানুষ দিগ্বিজয় প্রেমচাঁদের দলবদলে রাজনৈতিক সমীকরণও পাল্টে যেতে পারে। কারণ প্রেমচাঁদের খুব কাছের মানুষ ছিলেন দিগ্বিজয় সিং। রাজনৈতিক মহলে এখন জল্পনা শুরু হয়েছে, প্রেমচাঁদের পর দিগ্বিজয়ও বিজেপিতে যোগ দেবেন না তো! কারণ দিগ্বিজয়ের সঙ্গে প্রতিনিয়ন মতবিরোধী চলছে কংগ্রেসের। প্রেমচাঁদের ছেলেও যুব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।দলবদলে প্রেমচাঁদের ক্ষোভ দলবদলের পরই ক্ষোভ উগরে দিলেনে প্রেমচাঁদ

কংগ্রেসে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের সুযোগ নিতে চাইছে বিজেপি।  বিজেপি প্রতিষ্ঠানবিরোধী হাওয়ার মোকাবিলায় বিরোধী কংগ্রেসের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে কাজে লাগাতে বদ্ধপরিকর। কারণ মধ্যপ্রদেশে প্রবীণ কমলনাথ ও জ্যোতিরাদিত্য ভারসাম্য বজায় রেখে চললেও, আর এক প্রবীণ নেতা দিগ্বিজয় সিংকে নিয়ে দলের মধ্যে জল্পনা বাড়ছে। এখনও কংগ্রেস প্রার্থী স্থির করতে পারেনি। তা নিয়ে প্রকাশ্যে তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়ছেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, দিগ্বিজয় সিং।

বিজেপিতে যোগ দিয়ে প্রেমচাঁদ সাংবাদিকদের বলেন , কংগ্রেস দলিত ও কিংবা গরিব, কারও কোনও সমস্যা বোঝার চেষ্টা করে না। দলের নেতা কর্মীরা নিজেদের মধ্যে লড়াই করতেই ব্যস্ত। মানুষের জন্য আর কাজ করবে কি? প্রেমচাঁদ বলেন, সেই কারণেই তিনি দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন বলে জানান প্রেমচাঁদ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment