দেশ 

অন্তবর্তীকালীন সিবিআই ডিরেক্টর ‘রুটিন ‘ কাজ করবে, অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির তত্ত্বাবধানে দু সপ্তাহের মধ্যে ভার্মার বিরুদ্ধে তদন্ত শেষ করতে হবে সিভিসিকে নির্দেশ শীর্ষ আদালতের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানো সিবিআই ডিরেক্টর অলোক কুমার ভার্মার  বিরুদ্ধে দু’ সপ্তাহের মধ্যে তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ করে  রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিল দেশের সুপ্রিম কোর্ট। শুক্রবার এই নির্দেশ  দিলেন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। তবে সেন্টাল ভিজিলেন্স কমিশন তদন্ত করলেও তা হবে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি পট্টনায়কের তত্ত্বাবধানে বলে প্রধান বিচারপতি নির্দেশ দিয়েছেন ।এই নির্দেশের ফলে কেন্দ্র সরকার ও সিবিআই আইনজীবী আবেদনকে কার্যত নস্যাৎ করেদিলেন প্রধানমন্ত্রী বিচারপতি ।

রাতারাতি তাঁকে ‘ছুটিতে যেতে বলার’ নির্দেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করছিলেন অলোক কুমার বর্মা। বর্মা তাঁর আবেদনে বলেছিলেন, এই নির্দেশের ফলে প্রতিষ্ঠান হিসাবে সিবিআইয়ের স্বাধীনতা খর্ব হয়েছে এবং সিবিআই অফিসারদের মনোবল ভেঙে গিয়েছে। তাঁর আবেদনটি নিয়ে শুক্রবার সকালে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের বেঞ্চে শুনানি শুরু হয়। তিনি নির্দেশ দেন, অলোক বর্মার বিরুদ্ধে সেক্রেটারিয়েটের নোটে উল্লেখ থাকা অভিযোগের তদন্তসেন্ট্রাল ভিজিল্যান্স কমিশনকে (সিভিসি) দু’ সপ্তাহের শেষ করতে হবে।

শুক্রবার সিবিআই ডিরেক্টর অলোক ভার্মার  আইনজীবী ফলি নরিম্যান  সর্বোচ্চ আদালতে প্রশ্ন তোলেন, আলোক ভার্মার মেয়াদচুক্তি কি যে কোনও সময় লঙ্ঘন করা যেতে পারে? তাঁর মতে, “আইনে কোনও অধিকার না থাকা সত্ত্বেও সেন্ট্রাল ভিজিলেন্স কমিশন এবং কেন্দ্রীয় সরকার ওই(অলোক ভার্মাকে ছুটিতে পাঠানো) নির্দেশ দিয়েছে।” তখন প্রধান বিচারপতি অ্যাটর্নি জেনেরালকে বলেন, সুপ্রিম কোর্টের বর্তমান বা প্রাক্তন কোনও বিচারপতিকে দিয়ে তদন্ত চালানো হবে। তদন্ত চলাকালীন এম নাগেশ্বর রাও কোনও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন না। এবং অলোক ভার্মা ও রাকেশ আস্থানাকে নিয়ে তদন্ত ১০ দিনের মধ্যে শেষ করতে হবে। তখন কেন্দ্রের তরফে সলিসিটর জেনেরাল তুষার মেহতা বলেন, “সম্ভবত ১০ দিনে তদন্ত শেষ করা যাবে না।” পাশাপাশি, তিনি সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতির তদারকিতে সেন্ট্রাল ভিজিলেন্স কমিশনের তদন্ত চালানোর বিরোধিতা করেন। দুপক্ষের শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতি সলিসিটর জেনারেলের আবেদনকে খারিজ করে দিয়ে নির্দেশ দেন, অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের তদন্ত শেষ করতে হবে ২ সপ্তাহের মধ্যে। এই তদন্ত সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি পট্টনায়েকের তত্ত্বাবধানে ।  দীপাবলির পর ১২ নভেম্বর ফের আদালতে মামলাটি উঠবে।  অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এ কে পট্টনায়কের অধীনে এই তদন্ত প্রক্রিয়া চলবে। এই সময়ে সিবিআইয়ের অস্থায়ী প্রধান শুধুমাত্র রুটিন কাজগুলি করবেন।

উল্লেখ্য,মাংস ব্যবসায়ী মইন কুরেশি মামলার তদন্তকে কেন্দ্র করে সিবিআই ডিরেক্টর অলোক ভার্মা ও স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসে। রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ ওঠে। অভিযোগ অস্বীকার করেন আস্থানা। পালটা অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ তোলেন তিনি।
এরই মধ্যে মঙ্গলবার আস্থানার ঘনিষ্ঠ অফিসার দেবেন্দ্র কুমারকে গ্রেপ্তার করেন সিবিআই অফিসাররা। এদিকে আস্থানার বিরুদ্ধে আগেই এফআইআর হয়েছে। গ্রেপ্তারি এড়াতে দিল্লি হাইকোর্টে যান আস্থানা। বিচারপতি নাজমি ওয়াজিরির বেঞ্চে মামলাটি ওঠে। শুনানি শেষে বিচারপতি নির্দেশ দেন, আগামী সাতদিন গ্রেপ্তার করা যাবে না আস্থানাকে। তবে তদন্ত যেমন চলছে, তেমন চলবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment