কলকাতা 

দুর্গাপুজোয় অনুদান মামলায় জয় হল মমতা সরকারের , আইনসভার সিদ্ধান্তে হস্তক্ষেপ করবে না আদালত

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : দুর্গাপুজোয় রাজ্যের ২৮ হাজার ক্লাবকে রাজ্য সরকার অনুদান দেওয়ার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেই সংক্রান্ত মামলায় জয় হল রাজ্য সরকারের। বুধবার হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি দেবাশিস করগুপ্ত ও শম্পা সরকারের ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়ে দেয়, আইনসভার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত। সেখানে হাইকোর্ট হস্তক্ষেপ করবে না।

সরকারি আইনজীবী অর্ক কুমার নাগ জানিয়েছেন, “প্রাথমিকভাবে বাজেট বা অর্থনৈতিক কোনও বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয় আইনসভা। তাদের উপরই কোর্ট এক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়টি ছেড়েছে। কোর্টের তরফে জানানো হয়েছে, সরকারি তহবিল থেকে নিশ্চয়ই এমনভাবে টাকা খরচ করা হবে, যা আইনানুগ ও জনস্বার্থের পক্ষে। তাই আদালত এবিষয়ে হস্তক্ষেপ করবে না। ফলে, সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেইমতো এগোতে পারবে।”

গত ১১ সেপ্টেম্বর নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন ২৮ হাজার ক্লাবকে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেবে রাজ্য সরকার। তারপর ২৪ সেপ্টেম্বর বিজ্ঞপ্তিও জারি করা হয়। এর বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টে আইনজীবী দ্যুতিমান ব্যানার্জি ও আরও এক আইনজীবী জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন। তাঁদের দাবি ছিল, রাজ্য সরকার কোনও একটি ধর্মের উৎসবে এভাবে টাকা দিতে পারে না। এই সিদ্ধান্ত সংবিধান বিরোধী।

এরপর গত ৫ অক্টোবর এই মামলার শুনানিতে কীসের ভিত্তিতে এই অনুদান  দেওয়া হচ্ছে রাজ্য সরকারের কাছে তা জানতে চায় হাইকোর্ট। তাছাড়া, এর কোনও গাইডলাইন সরকার তৈরি করেছে কি না তাও জানতে চাওয়া হয়। হাইকোর্টের বক্তব্য ছিল, সাধারণ মানুষের টাকা একবার সরকারি কোষাগার থেকে বেরিয়ে গেলে তা আর ফেরত পাওয়া যাবে না।

রাজ্যের তরফে অ্যাডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্তের পাশাপাশি প্রবীণ আইনজীবী শক্তিনাথ মুখার্জি সওয়াল করেন। তিনি এটাই বোঝানোর চেষ্টা করেন যে, সরকার টাকা কীভাবে খরচ করবে তা একান্তই সরকারের সিদ্ধান্ত। এব্যাপারে যদি কোনও ভুলত্রূটি হয়ে থাকে, তা দেখার জন্য সরকারের পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটি আছে। এক্ষেত্রে আইনসভার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। কোর্ট এখানে কিছু করতে পারে না। তবে, পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটিও যদি ফেল করে, সেক্ষেত্রে কোর্টের দরকার হতে পারে। প্রবীণ এই আইনজীবী গতকাল মন্তব্য করেন, “গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় ক্যাবিনেটের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।”
হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি দেবাশিস করগুপ্ত ও শম্পা সরকারের ডিভিশন বেঞ্চ বুধবার জানান, এটি অর্থনৈতিক বিষয়। এতে হাইকোর্ট হস্তক্ষেপ করতে চায় না। এই রায়ের পর রাজ্য সরকারের তরফে ক্লাবগুলিকে পুজোর জন্য অনুদান দেওয়ার ক্ষেত্রে আর কোনও বাধা রইল না।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment