কলকাতা 

রোজভ্যালি কাণ্ডে তৃণমূলের দুই সাংসদকে তলব ইডির,তৃণমূল বলছে প্রতিহিংসা , রাজ্য কংগ্রেস বলছে এত দেরিতে তৎপরতা কেন ?

শেয়ার করুন
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জামিতুল ইসলাম : রোজভ্যালি কাণ্ডে ফের তৃণমূল সাংসদ তাপস পাল ও সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে তলব করল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট(ইডি)। আগামী বৃহস্পতিবার কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ তাপস পালকে হাজিরার নির্দেশ দিয়েছে ইডি। অন্যদিকে, উত্তর কলকাতার তৃমমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে শুক্রবার হাজিরার নির্দেশ দিয়েছে ইডি।

ইডি সূত্রে খবর, সংস্থার কর্ণধার গৌতম কুণ্ডু এবং সংস্থার বেশ কয়েক জন পদস্থ কর্মচারীকে বিভিন্ন সময়ে জেরা করে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে রোজভ্যালির ঘনিষ্ঠ যোগের তথ্য উঠে আসে। রোজভ্যালির অফিস থেকে বাজেয়াপ্ত হওয়া বিভিন্ন নথিতেও সুদীপের নাম পাওয়া গিয়েছিল বলে ইডি সূত্রে খবর। তার ভিত্তিতেই সুদীপকে তলব করা হয়েছে।
জানা গিয়েছে, গত আগস্ট মাসে রোজভ্যালি কাণ্ডে নতুন করে একটি মামলা দায়ের ইডি। রোজভ্যালি হোটেল, রোজভ্যালি এন্টারটেইনমেন্ট, রোজভ্যালি রিয়েল এস্টেট- এই ৩টি সংস্থার বিরুদ্ধেই আর্থিক তছরুপের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মোট ১৭ হাজার ৫২০ কোটি টাকা তছরুপ করা হয়েছে বলে অভিযোগ। ১৯৯৭ সালে পশ্চিমবঙ্গে ব্যবসা শুরু করে রোজভ্যালি।

অভিযোগ, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া ও রেজিস্ট্রার অফ কোম্পানির অনুমোদন ছাড়াই দেড় দশকেরও বেশি সময় ধরে বাজার থেকে টাকা তুলেছে তারা। এমনকি সেবির গাইডলাইন ভেঙেও টাকা তোলা হয় বলে অভিযোগ।

এদিকে ,তৃণমূল নেতৃত্ব এই বিষয়টিকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা বললেও কংগ্রেস নেতা প্রাক্তন সাংসদ ও বিশিষ্ট আইনজীবী সরদার আমজাদ আলী বাংলার জনরবকে বলেন , এত দেরিতে কেন ইডি দুই সাংসদ তলব করল তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে । এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সিবিআই এই দুই তৃণমূল সাংসদকে বেশ কিছু দিন জেলে রেখেছিল । এরা কেউই এখন আইনত ছাড়া পাননি । তাই স্বাভাবিকভাবেই এদের যেকোনো সময় সিবিআই ও ইডি প্রযোজন তলব করতেই পারে । এর সঙ্গে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কোনো সর্ম্পক নেই । তবে প্রশ্ন উঠেছে গতকালই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশংসা করার পরই আজকে ইডি-র এই তৎপরতা নিয়ে । তাহলে কী আগামী লোকসভা নির্বাচনের আগে আরও বড় কোনো ঘটনার মুখোমুখি হতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস ।


শেয়ার করুন
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment