জেলা 

বিজেপির সিংহভাগ সদস্য যোগ দিল তৃণমূলে ফলে জেতা পঞ্চায়েতে বোর্ড গড়বে তৃণমূল

শেয়ার করুন
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি : ভোট-যুদ্ধে হারলেও, বিজেপির জয়ীদের দলে ভিড়িয়ে ওস্তাদের মার শেষ রাতে দিয়ে দিল তৃণমূল। বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটি পঞ্চায়েতের পরিবর্তন ঘটে গেল অচিরেই। ১৬ আসনের এই পঞ্চায়েতে বিজেপি ৯টি আসনে জয়ী হয়। তৃণমূল পায় ৭টি আসন। বিজেপি ছেড়ে চঞ্চল নায়েক, সোনালি বাউরি, ঝর্না কুন্ডু, রীতা গোরক্ষী, শ্যামলী মাজি ও সৌরভী সিনহা দলত্যাগ করেন। এই ৬ জনের দলবদলে পঞ্চায়েতের চিত্রটাই বদলে যায়। বনধের আগের রাতে এই দলবদলের পর তৃণমূলের আসন সংখ্যা দাঁড়ায় ১৩ আর বিজেপির ৩। অর্থাৎ পঞ্চায়েতের চাবি উঠল তৃণমূলের হাতে। ভোটে জিতেও বিজেপির জারিজুরি শেষ।

কিন্তু কী করে সম্ভব হল এই হিসেবের বদল। বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়া সদস্যদের দাবি, এখানে বিজেপির টিকিটে জিতেছিল তৃণমূলের বিক্ষুব্ধরা। আমরা তৃণমূলের বিক্ষুব্ধ। তৃণমূলের এই বিক্ষুব্ধরা ঘরে ফিরে আসায় তৃণমূল শক্তিশালী হল আর ক্ষমতাতেও ফিরল। আমাদের জয়ের বিজেপির কোনও কৃতিত্ব নেই। এই অবস্থায় তৃণমূল কংগ্রেস আশাবাদী, বাকি তিনজনও বিজেপি ছেড়ে ‘ঘর’-এ ফিরবেন। ফলে বিরোধীশূন্য হবে পঞ্চায়েত।

তৃণমূল জেলা সভাপতি অরূপ খাঁ বলেন, বিজেপি সাংগঠনিকভাবে এখানে শক্তিশালী নয়। তৃণমূলের বিক্ষুব্ধদের কাজে লাগিয়ে জিতেছিল। তবে আমাদের ভুল বোঝাবুঝি মিটে গিয়েছে। ফলে ঘরের ছেলেরা ঘরে ফিরে এসেছে। বিজেপি এখান থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। আর বিজেপির জেলা সভাপতি স্বপন ঘোষের কথায়, মানুষ ভোট দিয়েছিল বিজেপিকে, বিজেপির পদ্মফুল চিহ্নে। ব্যক্তিগত কাউকে ভোট দেয়নি। সেটা ভুলে গেলে চলবে না। এর ফল ভুগবে তৃণমূল। আসন্ন লোকসভাতেই যোগ্য জবাব দেবে মানুষ।


শেয়ার করুন
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment