জেলা 

পুলিশকে বেঁধে পেটানোর নিদান দিয়ে গ্রেপ্তার উত্তর দিনাজপুরের বিজেপি সভাপতি শংকর চক্রবর্তী

শেয়ার করুন
  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি :মুখ্যমন্ত্রী উত্তর দিনাজপুরে ছাত্র মৃত্যু নিয়ে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার ইঙ্গিত দেওয়ার কয়েক ঘন্টা পরেই পুলিশ গ্রেপ্তার করল বিজেপি জেলা সভাপতিকে । মুখ্যমন্ত্রীর এই উদ্যোগে আশার আলো দেখছে ধর্মনিরপেক্ষ মহল। রবিবার  ইসলামপুরের গ্রামের এক সভায় উপস্থিত হয়ে ঢুকে বিজেপি-র উত্তর দিনাজপুরের জেলা সভাপতি শংকর চক্রবর্তী উসকানিমূলক মন্তব্য করে পুলিশকে কুকুরের সঙ্গে তুলনা করেন। এই মন্তব্যের পাঁচঘণ্টার মধ্যেই বিজেপির জেলা সভাপতিকে গ্রেফতার করল পুলিশ। করণদিঘি থানার পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করে। তাঁর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে ।পুলিশকে হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি এদিন বলেন, “পুলিশ অত্যাচার চালালে, নিয়ম না মানলে আপনারাও রুখে দাঁড়ান। ঘরে থাকা বঁটি, লাঠি দিয়ে আক্রমণ করুন। বেঁধে পেটান। পুলিশের ছোড়া গুলিতে দুটি প্রাণ গিয়েছে। প্রয়োজনে আরও হাজার বুক আমরা পেতে দেব।

তবে পুলিশি অত্যাচারের সামনে মাথা নত করব না।” ইসলামপুরে ছাত্রমৃত্যু প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, “পুলিশ গুলি করে দু’জন ছাত্রকে মেরে ফেলেছে। এলাকায় আতঙ্কের বাতাবরণ তৈরি করছে। দুটি প্রাণ কেড়ে নেওয়ার পর এখনও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। উলটে যারা বিজেপি করছে তাদের রাতের বেলা ধরছে।” তিনি সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে এলাকার মানুষদের বার্তা দিয়ে বলেন, “রক্ষক ভক্ষক হলে কাউকে না কাউকে আওয়াজ তুলতে হবে। তাই আমি বলে দিয়ে এসেছি, পুলিশ যদি রাতের বেলা ঢোকে, মহিলাদের শ্লীলতাহানি করার চেষ্টা করে, পুলিশ আইন না মানলে আত্মরক্ষার স্বার্থে মহিলারা আইন হাতে তুলে নেবেন। বাঁশ, বঁটি যা থাকবে তা দিয়ে পুলিশকে কাউন্টার করবেন। পুলিশকে সবরকমভাবে অসহযোগিতা করবেন। কোথাও অসুস্থ কুকুর পড়ে থাকলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাবেন কিন্তু পুলিশকর্মী অসুস্থ হয়ে পড়ে থাকলে তাঁর দিকে ফিরেও তাকাবেন না।”  এই সব মন্তব্য করার পাশাপাশি শংকর চক্রবর্তী পুলিশকে বয়কটের ডাক দেন। কড়া ভাষায় জানিয়ে দেন, “৫২ মাস জেল খাটতে হলেও উত্তর দিনাজপুরে গুন্ডামি চলতে দেব না।” এই সব মন্তব্যের পরই শংকর চক্রবর্তীকে গ্রেপ্তার করা হয়।
বিজেপি জেলা সভাপতিকে গ্রেফতার করার পরই  রাজ্য পুলিশের আইজি আইনশৃঙ্খলা অনুজ শর্মা সাংবাদিকদের বলেন, কারও হাতে মাইক থাকলেই, তিনি যা খুশি বলতে পারেন না। উনি উসকানিমূলক কথা বার্তা বলে এলাকা উত্তপ্ত করার চেষ্টা করছেন। তাই তাঁর বিরুদ্ধে কড়া আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হল। তিনি জানান, ইসলামপুরে ছাত্র খুন ও হিংসার ঘটনায় জড়িতদের শীঘ্রই গ্রাফতার করা হবে।হিংসার ঘটনার পর চারদিন কেটে গেলেও, থমথমে ইসলামপুর।

জানা গেছে , মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কড়া হাতে পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়ার পরই উত্তর দিনাজপুর জেলার বিজেপি সভাপতিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ।


শেয়ার করুন
  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment