কলকাতা 

”খুনের রাজনীতি করে কেউ কেউ ক্ষমতা দখলের কথা ভাবছে বাংলায় তা হওয়ার নয়” ইসলামপুরে ছাত্র আন্দোলনের নেপথ্যে আরএসএস-বিজেপিকে দায়ী করে প্রতিক্রিয়া পার্থের , বিজেপি-র ডাকা বনধে মিশ্র সাড়া

শেয়ার করুন
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে দাড়িভিট হাইস্কুলে  সংঘর্ষের ঘটনায় আরএসএস এবং বিজেপি-কে দায়ী করলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এই ঘটনার পিছনের লোকেরা কেউ ছাড় পাবে না বলে তিনি জানান। এই ঘটনার পিছনে পুলিশ, প্রশাসন কিংবা স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কোনও ভূমিকা রয়েছে কি না, তাও তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। সাসপেন্ড করা হয়েছে ওই জেলার ডিআই-কে। তিনি বলেন, দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে  মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।

শিক্ষক নিয়োগের বিরোধিতাকে কেন্দ্র করে গতকাল রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় দাড়িভিট হাইস্কুল চত্বর। স্কুলে ৩ উর্দু শিক্ষক নিয়োগের বিরোধিতা করে ছাত্ররা। তাদের বক্তব্য, উর্দু ভাষার পড়ুয়া না থাকা সত্ত্বেও ওই ৩ শিক্ষককে নিয়োগ করা হয়েছে। অথচ স্কুলে দরকার বাংলা ভাষার শিক্ষক। পড়ুয়াদের বিক্ষোভের সময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। সেইসময় গুলিবিদ্ধ হন স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র রাজেশ সরকার। পরে তাঁর মৃত্যু হয়। বর্তমানে তিনি স্থানীয় আইটি্আই কলেজে পড়ছিলেন।

ইসলামপুরের স্কুলে বিক্ষোভের ঘটনায় আরএসএসের পরোক্ষ ইন্ধন রয়েছে বলে অভিযোগ করলেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, এই ঘটনায় আরএসএস কিংবা বিজেপি-র দায় রয়েছে , কেউ ছাড়া পাবে না।

একইসঙ্গে তিনি বলেন, “বিষয়টি নিয়ে আমি নিজে জেলাশাসকের সঙ্গে কথা বলেছি। স্বরাষ্ট্রসচিব এবং রাজ্য পুলিশের ডিজি কথা বলেছেন। ডিআই-কে সাসপেন্ড করা হয়েছে।”

 রাজেশ সরকারের মৃত্যু নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি বলেন, “যেকোনও মৃত্যুই দুঃখের। কিন্তু একজন প্রাক্তন ছাত্র কেন এই গন্ডগোলের মধ্যে স্কুলে গেল, সেটাই বুঝে উঠতে পারছি না? খুনের রাজনীতি বাংলায় কেউ মেনে নেয়নি, নেবেও না। কেউ কেউ এসব করে ক্ষমতা দখলের কথা ভাবছে। বাংলায় তা হওয়ার নয়।

এদিকে , আজ উত্তর দিনাজপুরে বনধ চলাকালীন সময়েই ইসলামপুরে মৃত্যু হল আন্দোলনকারী এক ছাত্রের। মৃতের নাম তাপস বর্মণ। বাড়ি দাড়িভিট এলাকায়। সে ইসলামপুর কলেজের থার্ড ইয়ারের ছাত্র ছিল। আজ ভোর ৪টে নাগাদ শিলিগুড়িতে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে মারা যায় সে। গতকাল গুলিবিদ্ধ অবস্থায় প্রথমে তাকে ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পরে শিলিগুড়ির হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। গতকাল ইসলামপুর আইটিআই কলেজের এক ছাত্রের মৃত্যু হয়েছিল। পুলিশের গুলিতে তার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। সেই ঘটনার প্রতিবাদে আজ ১২ ঘণ্টা উত্তর দিনাজপুর জেলা বনধের ডাক দেয় বিজেপি।

সকাল ৬টা থেকে বনধ শুরু হয়েছে। রায়গঞ্জ সহ বিভিন্ন এলাকায় বনধের মিশ্র প্রভাব পড়েছে। বনধ উপেক্ষা করে চলাচল করায় আজ সকালে রায়গঞ্জ শহরের কসবা এলাকায় একটি সরকারি বাসে ভাঙচুর চালায়  বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। রায়গঞ্জ থানার রূপাহার এলাকায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কেও একটি সরকারি বাসে ভাঙচুর করা হয়।

তবে অন্যদিনের তুলনায় আজ বেসরকারি বাস কম দেখা যাচ্ছে। সকালের দিকে রাস্তাঘাট প্রায় শুনশান থেকেছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শহরজুড়ে প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।


শেয়ার করুন
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment