দেশ 

মোহন ভাগবত কংগ্রেসের প্রশংসা করে “,ভারত বহুত্ববাদের দেশ, আমাদেরও উচিত বহুত্ববাদকে গ্রহণ করা এবং উপভোগ করা ”সংঘ প্রধানের এই স্বীকৃতিতে জল্পনা ছড়াচ্ছে তাহলে কী আরএসএসও বহুত্ববাদের পক্ষে ?

শেয়ার করুন
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে কংগ্রেসের অবদান সবচেয়ে বেশি রয়েছে । কংগ্রেস দেশকে অনেক সুসন্তান উপহার দিয়েছে । এভাবেই কংগ্রেসের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত। দিল্লিতে শুরু হওয়া তিনদিনের  আরএসএস-এর জাতীয় সেমিনারে সংঘ প্রধান মোহন ভাগবত বলেন, স্বাধীনতা আন্দোলনে কংগ্রেসের ভূমিকা অপরিসীম।

মোহন ভাগবত দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে কংগ্রেসের অবদান স্বীকার করে নিয়ে বলেন, কংগ্রেসের নেতৃত্বে একটা বিরাট বিপ্লব গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়েছিল। কংগ্রেসই অসংখ্য সর্বত্যাগী মহান মনীষীদের জন্ম দিয়েছে বলেও ভাগবত স্বীকার করে নেন। তিনি বলেন, সেইসব সর্বত্যাগী মনীষীরা আজও আমাদের অনুপ্রেরণা জোগায়। কংগ্রেসের বিপ্লব যে সাধারণ মানুষের মধ্যেও সাড়া ফেলেছিল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।তাঁর এই বক্তব্যের মাধ্যমে তিনি স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিলেন, ভারতের স্বাধীনতা অর্জনের পিছনে কংগ্রেসের বড় হাত রয়েছে।

এদিন সংঘ পরিচালক কংগ্রেসের দীর্ঘদিনের শ্লোগানকে বা আপ্তবাক্যকে মেনে নিয়ে বলেন ,ভারত বহুত্ববাদের দেশ, আমাদেরও উচিত বহুত্ববাদকে গ্রহণ করা এবং উপভোগ করা।

সম্প্রতি রাহুল গান্ধী আরএসএসকে দ্ব্যর্থহীন ভাষায় আক্রমণ করেছিলেন। এবার রাহুলের কংগ্রেসের প্রশংসা করে সৌজন্যের রাজনীতির নমুনা রাখল সঙ্ঘ।জাতীয় স্তরে আরএসএ গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানোর কর্মসূচিতে নেমেছে। সেই লক্ষ্যেই আরএসের নাগপুর-সভায় আদ্যান্ত কংগ্রেসি প্রণব মুখোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।  কংগ্রেসের জয়রাম রমেশ ও শশী থারুরকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। এমনকী দিল্লির এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ করা হয়েছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও। এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল দেশের সমস্ত বিরোধী দলের শীর্ষনেতাদেরই। সেই অনুষ্ঠানেই আরএসএস প্রধান প্রশংসায় ভরিয়ে দেন কংগ্রেসের। স্বাধীনতা সংগ্রাম প্রসঙ্গে কংগ্রেসের ভূমিকার প্রশংসা করে বিশেষ বার্তা দেয় সঙ্ঘ। অবশ্য সঙ্ঘের ডাকে সাড়া দিয়ে বিরোধীরা কেউ যায়নি । এর জন্য বিজেপি সব দলের সমালোচনা করেছে। বিজেপি বলে, যাঁরা মুখে বহুত্ববাদের কথা বলে, তাঁদের মধ্যে কেন এই দ্বিচারিতা।

ওয়াকিবহাল মহলের মত, আরএসএস কংগ্রেসের প্রতি সৌজন্য জ্ঞাপন করে ২০১৯-এর আগে দেশে নিজেদের  গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানোর  চেষ্টা চালাচ্ছে।


শেয়ার করুন
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment