কলকাতা 

ওয়েবকুপা থেকে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে ছেঁটে ফেলে কী শোভনকে বার্তা দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

শেয়ার করুন
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিবেদক : তৃণমূল কংগ্রেস প্রভাবিত অধ্যাপক সংগঠন থেকে ছেঁটে দেওয়া হল বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে। শাসকদলের শিক্ষা সেল থেকে বাদ পড়লেন বৈশাখী। তৃণমূলের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সংগঠন ওয়েবকুপার নতুন রাজ্য কমিটি গঠিত হল। ৬৫ জনের সেই কমিটিতে ঠাঁই-ই পেলেন না বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। ৬ মাস আগেও বৈশাখী কিন্তু ওয়েবকুপার যুগ্ম সম্পাদক পদে ছিলেন।

শিক্ষামন্ত্রী তথা তৃণমূল শিক্ষা সেলের চেয়ারম্যান পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে তৃণমূল ভবনে ওয়েবকুপা-র সাধারণ সভা ডাকা হয়েছিল। ১৩০ জনকে নিয়ে সভা হয়। সেই সভাতেই ৬৫ জনের কমিটি চূড়ান্ত করা হয়। পরে পার্থবাবু বলেন, ‘‘কৃষ্ণকলি বসুই ফের স্থায়ী সভাপতির দায়িত্ব পেয়েছেন।’’

সংগঠনের সভাপতি কৃষ্ণকলি বসুর সঙ্গে দুই যুগ্ম সম্পাদক বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এবং গোবিন্দ সাঁধুখার বিবাদের জেরেই তৃণমূল নেতৃত্ব  মাস ছয়েক আগে কমিটি ভেঙে দিয়েছিল বলে তৃণমূল সূত্রে খবর। সেই কমিটি নতুন করে গড়ে দেওয়া হল। ওয়েবকুপায় এখন সভাপতি কৃষ্ণকলিরই বেশি দাপট রয়ে গেল । মূলত কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক  রাখার দায়েই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বেশ বিরক্ত তার ফলেই কোপ গিয়ে পড়ল বৈশাখীর উপর । অবশ্য বৈশাখীকে সরিয়ে দিয়ে দলনেত্রী শোভনকে বার্ততা দিল পর্যযবেকক্ষকরা মনে করছেন। এরপরও শোভনের আচরনের পরিবতন না হলে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হতে পারে।

ওয়েবকুপার নতুন রাজ্য কমিটি থেকে বাদ পড়ার পর বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিক্রিয়া বেশ কড়া ‘‘গত ৮ মার্চ সর্বোচ্চ নেতৃত্বের তত্বাবধানে যে বৈশাখী-নিধন যজ্ঞ শুরু হয়েছিল, ৬ সেপ্টেম্বর তার সমাপন হল। সংগঠনের কমিটি এমন হওয়া উচিত, যাতে সব অংশের মতামতের প্রতিফলন থাকে। কিন্তু, যাঁদের দলের সংগঠন, তাঁরা মনে করলেন যে ওয়েবকুপা-কে কৃষ্ণকলি বসুর হাতে উপহার হিসাবে তুলে দেওয়া উচিত। সে রকমই হল। এর পরে আর আমার বলার কী থাকতে পারে!’’ তবে বৈশাখী আরও বলেছেন, ‘‘এত দিন তৃণমূলের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক ভাবে আমার একটা সম্পর্ক ছিল। বৃহস্পতিবার থেকে সেই সম্পর্কেও যবনিকা পড়ে গিয়েছে। আশা করি, এর পরে আমাকে শান্তিতে থাকতে দেওয়া হবে। যদি তা না হয়, যদি এর পরেও আমার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে তৃণমূল নেতৃত্বের তরফ থেকে কোনও মন্তব্য আসে, তা হলে জবাবটা যে ভাবে দিতে হয়, সে ভাবেই দেব।’’

 


শেয়ার করুন
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment