দেশ 

পঞ্জাবের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের পথে , বিধানসভা নির্বাচনে কী কোনো প্রভাব ফেলতে পারবেন ক্যাপ্টেন ? জানতে হলে ক্লিক করুন

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংরার জনরব ডেস্ক : গেরুয়া শিবিরে যাচ্ছেন না পঞ্জাবের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং ।তিনি আলাদা রাজনৈতিক দল তৈরি করছেন বলে সাংবাদিককে আজ বুধবার জানিয়েছেন । আগামী বছরই পাঞ্জাবে বিধানসভা নির্বাচন। তার ঠিক আগেই এই নতুন দল গড়ার ঘোষণা বর্ষীয়ান রাজনীতিকের। তবে দলের নাম কিংবা অন্যান্য বিষয়ে এদিন কিছুই জানাননি তিনি। জানিয়েছেন, নির্বাচন কমিশনের অনুমতি পেলেই এব্যাপারে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে।

এদিনের সাংবাদিক সম্মেলনে অমরিন্দর বলেন, ”হ্যাঁ, আমি নতুন দল গড়তে চলেছি। কিন্তু আমি এখনও জানি না দলের নাম কী হবে। আপাতত নির্বাচন কমিশনের নির্দেশের জন্য অপেক্ষা করছি। তাদের সঙ্গে দলীয় প্রতীক নিয়ে আলোচনা করছেন আমার আইনজীবীরা। তবে একবার দল ঘোষণা হয়ে গেলে আমি ১১৭টি আসন থেকেই লড়ব। কংগ্রেসের অনেক নেতাই আমার দলে যোগ দেবেন।”

ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংহের জনপ্রিয়তা ছিল প্রশ্নাতীত । তবে বিগত এক বছরের বেশি সময় ধরে তাঁর জনপ্রিয়তা অনেকটা কমেছে । সেদিক থেকে পঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতি সিধুর জনপ্রিয়তা অনেকটাই আছে । অমরিন্দর সিং নির্বাচনে দেওয়া প্রতিশ্রুতি ঠিক মতো পালন করতে পারেননি অভিযোগ উঠেছে । তাঁকে মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে সরে যেতে নির্দেশ দিয়েছিলেন খোদ কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী । অমরিন্দরের পদত্যাগের পর মনে করা হয়েছিল পঞ্জাবে কংগ্রেসের সংকট তৈরি হবে । তা হয়নি । শেষ পর্যন্ত চরণ সিংহ চান্নীকে মুখ্যমন্ত্রী করে সমগ্র উত্তরভারতে কংগ্রেস একটা আলাদা বার্তা দিয়েছে । কারণ চরণ সিংহ চান্নী একজন দলিত শিখ সম্প্রদায়ের লোক। স্বাভাবিক পঞ্জাবের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো দলিত শিখকে মুখ্যমন্ত্রী পদে বসানো হলো । পঞ্জাবে এই সম্প্রদায়ের মানুষের সংখ্যা ৩০ শতাংশ । ফলে কংগ্রেস এই ৩০ শতাংশ ভোটের একটা বড় অংশ যে পাবে তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই । তাই ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং আলাদা রাজনৈতিক দল গঠন করে কতটা প্রভাব ফেলতে পারবে তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ