খেলা 

পাকিস্থানের কাছে হারের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় মুহাম্মদ শামীকে কটাক্ষ, প্রতিবাদে সামিল রাহুল গান্ধী থেকে শুরু করে সচিনরা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 বাংলার জনরব ডেস্ক : গত রবিবার পাকিস্থানের বিরুদ্ধে ভারত হেরে যাওয়ার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় নিশানা বানানো হয়েছে মুহাম্মদ শামীকে । তাঁর বিরুদ্ধে নানা বিরুপ মন্তব্য করা হয়েছে । অবশ্য এর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী ।টুইটারে রাহুল লিখেছেন, ‘‘মহম্মদ শামি, আমরা সকলে তোমার পাশে আছি। এদের জীবনটাই ঘৃণায় ভরে গিয়েছে, কারণ ওদের কেউ ভালবাসে না। ওদের তুমি ক্ষমা করে দাও।’’ প্রতিবাদ করেছেন ওমর আবদুল্লাও। তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, এগারো জনের দল হেরেছে। তা হলে মাত্র এক জনকে নিশানা করা হচ্ছে কেন? তবে পরের দিকে শামির পাশে দাঁড়িয়ে অনেক ক্রিকেট ভক্তও পাল্টা টুইট করতে থাকেন। তাতে ঘৃণা নয়, শামির প্রতি ভালবাসাই রয়েছে। অন্যদিকে মুহাম্মদ শামীর পাশে দাঁড়ালেন দেশের প্রাক্তন ক্রিকেটাররা । সচিন থেকে শুরু করে রাহুর দ্রাবিড় পর্যন্ত সামীর পাশে দাঁড়িয়েছেন ।

সচিন তেন্ডুলকর থেকে বীরেন্দ্র সহবাগ অনেকে শামির পাশে দাঁড়িয়ে আক্রমণকারীদের এক হাত নিয়েছেন। রাজনৈতিক মহলেও প্রতিক্রিয়া হয়েছে এই ঘটনার। রাহুল গাঁধী পাশে দাঁড়িয়েছেন শামির। সচিন তেন্ডুলকর টুইটারে লিখেছেন, ‘‘আমরা যখন টিম ইন্ডিয়াকে সমর্থন করি, তখন টিম ইন্ডিয়ার প্রত্যেক সদস্যকে সমর্থন করি। মহম্মদ শামি এক জন বিশ্বমানের বোলার। ওর দায়বদ্ধতা নিয়ে প্রশ্নই ওঠে না। আর যে কোনও ক্রীড়াবিদের মতো ওরও একটা খারাপ দিন যেতে পারে। আমি শামি এবং টিম ইন্ডিয়ার পাশে আছি।’’

রবিবার দুবাইয়ে ভারতকে দশ উইকেটে উড়িয়ে দেয় পাকিস্তান। বিশ্বকাপে এই প্রথম তারা হারাল ভারতকে। ম্যাচের পরে বিরাট কোহালিও স্বীকার করে যান, পাকিস্তান তাদের সব বিভাগেই পুরোপুরি টেক্কা দিয়ে জিতেছে।
সহবাগের টুইট, ‘‘মহম্মদ শামির প্রতি এ ধরনের বিদ্রুপ আমাকে অবাক করেছে। আপনারা কি ভুলে গেলেন, দেশকে ও কত সম্মান এনে দিয়েছে? ভারতীয় দলের টুপি ও জার্সি এক বার কেউ পরে নিলে দেশকে কখনও অসম্মান করতে পারে না। মনে-প্রাণে সে চাইবে দেশকে জেতাতে।’’ যোগ করেন, ‘‘পরের ম্যাচে দেখিয়ে দাও তুমি কী করতে পারো শামি। তোমার পাশে আছি।’’
ইরফান পাঠানের টুইট, ‘‘ম্যাচে হার-জিত থাকবেই। তাই বলে কোনও একজনকে দোষারোপ করাটা আদৌ কি ভদ্রতা? আমরা কি পিছিয়ে যাচ্ছি?’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘আমিও অনেক ম্যাচে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভাল খেলতে পারিনি। হেরেছি। তাই বলে কখনও শুনতে হয়নি সে দেশে চলে যেতে। গণমাধ্যমে এটা কী শুরু হল?’’

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ