কলকাতা 

গড়িয়াহাটের জোড়া খুনের কিনারা হয়ে গেছে অভিযুক্তদের গ্রেফতার শুধু সময়ের অপেক্ষা দাবি করলেন কলকাতা পুলিশ কমিশনার সৌমেন মিত্র

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : কয়েকদিন আগে গড়িয়াহাটের ব্যবসায়ী সুবীর চাকী ও তার গাড়ির ড্রাইভার খুন হয়। সেই খুনের কিনারা করে ফেলেছে বলে দাবি করলেন কলকাতা পুলিশ কমিশনার সৌমেন মিত্র। মনে করা হচ্ছে কলকাতা পুলিশ খুব দ্রুত এই খুনের কিনারা করল। কারণ এই খুনের মোটিভ এবং খুনিকে ধরা খুব কঠিন কাজ ছিল। কিন্তু কলকাতা পুলিশ তার অক্লান্ত পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে সেই খুনের কিনারা করল বলে ওয়াকিবহাল মহল মনে করছেন। বিশেষ করে সৌমেন মৃত্যুর মতো যোগ্য এবং দক্ষ পুলিশ কমিশনারের পক্ষেই এ কাজ করা সম্ভব বলে বিশেষজ্ঞ মহল মনে করছেন।

আজ বৃহস্পতিবার কলকাতা পুলিশ কমিশনার সৌমেন মিত্র সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি করেন,‘‘আমাদের গোয়েন্দা বিভাগ এবং অন্য অফিসাররা মিলে গড়িয়াহাটের জোড়া খুনের ঘটনায় সমাধান করেছে। আরও কয়েকজনকে গ্রেফতার করা বাকি।’’

গত রবিবার গড়িয়াহাটের কাঁকুলিয়ায় খুন হন কর্পোরেট কর্তা সুবীর চাকি এবং তাঁর গাড়ির চালক রবীন মণ্ডল। ওই ঘটনায় বুধবার মিঠু হালদার নামে এক মহিলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। লালবাজারের গোয়েন্দারা ওই দিন মিঠুকে দিনভর জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পেরেছে, জোড়া খুনের ষড়যন্ত্রে তিনি জড়িত। এর পর তদন্তকারী অফিসাররা আরও জানতে পারেন, মিঠুর বড় ছেলে ভিকি হালদারই এই খুনের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত।

কিন্তু তাঁকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তিনি এবং তাঁর সঙ্গে ওই খুনের ঘটনায় জড়িত কয়েকজন এখনও পলাতক। তাঁদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার পুলিশ কমিশনার ওই অধরা ব্যক্তিদের গ্রেফতারির দিকেই ইঙ্গিত করেছেন বলে মনে মনে করা হচ্ছে। তিনি জানিয়েছেন, ওই খুনের ঘটনায় রহস্যের সমাধান হয়ে গেলেও দোষীদের এখনও গ্রেফতার করা যায়নি। তবে দোষীদের ধরা যে স্রেফ সময়ের অপেক্ষা, তা মনে করছেন তদন্তকারীরা।

বুধবারই মিঠুর ডায়মণ্ড হারবারের বাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ। সেখান থেকে বেশ কয়েকটি রক্ত মাখা পোশাক উদ্ধার করা হয়। ওই পোশাক ভিকি এবং তাঁর সঙ্গীদের বলেই অনুমান পুলিশের। মিঠু যে বাড়িতে ভাড়া থাকেন, সেই বাড়ির মালিক বলেন, দু’দিন আগে ওই রক্ত লাগা পোশাক মিঠুকে কাচতে দেখেছিলেন তিনি। প্রশ্ন করায় মিঠু তাঁদের বলেছিলেন, ‘‘ছেলে পুজোয় মারপিট করেছে। তাতে জখম হওয়ায় রক্ত লেগেছে পোশাকে।’’

মিঠুকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তদন্তকারীরা জেনেছেন, সুবীরের বাড়ি থেকে কিছুটা দূরেই কাঁকুলিয়া রেল গেটের কাছে মিঠুর শ্বশুরবাড়ি। মিঠু বেশ কয়েক বছর সেখানে ছিলেন। তবে স্বামীর সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় তিনি ডায়মণ্ড হারবারে একটি বাড়িতে চলে আসেন।

নিহত কর্পোরেট কর্তা সুবীর কাঁকুলিয়ায় তাঁর পৈতৃক বাড়িটি বিক্রির চেষ্টা করছিলেন দীর্ঘ দিন ধরেই। কাগজে তার বিজ্ঞাপন দেখে এর আগেও তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন মিঠুর ছেলে ভিকি। রবিবার নতুন ক্রেতা সেজে তিনি কর্পোরেট কর্তা সুবীরের সঙ্গে দেখা করেন। তবে সুবীর তাঁকে চিনে ফেলেন বলে অনুমান। গোয়েন্দাদের ধারণা, তার পরেই সম্ভবত সুবীরকে হত্যা করেন ভিকি এবং তাঁর বন্ধুরা


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ