কলকাতা 

আরজিকর মেডিকেল কলেজের অচলাবস্থা কাটাতে তৎপর স্বাস্থ্য দপ্তর আলিয়া নিয়ে নীরব কেন?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রায় ১৫ দিন ধরে চলা আরজিকর মেডিকেল কলেজের জুনিয়র ডাক্তারদের কর্মবিরতি থামাতে এবার তৎপর হলেন রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিব নারায়ন স্বরূপ নিগম। আজ সোমবার আর জি করের মেন্টর গ্রুপকে জরুরি তলব করেছেন তিনি। স্বাস্থ্যভবনে (Swasthya Bhaban) তিনি নিজে গ্রুপের সদস্যদের সঙ্গে বৈঠকে বসে সবটা বুঝে নেবেন। সূত্রের খবর, এরপর তিনি বিক্ষোভরত জুনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গেও কথা বলবেন। তাঁদের অভিযোগ শুনে সমাধানের চেষ্টা করতে পারেন। এদিকে, হাসপাতালের অন্যান্য চিকিৎসকরা জুনিয়র ডাক্তারদের কাজে ফিরতে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন। আজ থেকে কোনও রোগীকে রেফার না করা হয়, সেদিকেও কড়া নজর রাখছে স্বাস্থ্যদপ্তর।

রবিবার আন্দোলনরত জুনিয়র চিকিৎসকদের সঙ্গে দু’দফায় বৈঠক করেন জনপ্রতিনিধিরা। কিন্তু তাতেও সমাধান সূত্র মেলেনি। আন্দোলনকারীদের দাবি, অধ্যক্ষ পদত্যাগ না করলে তাঁরা রিলে অনশন চালিয়ে যাবে। এদিকে, রোগীদের চিকিৎসাও প্রায় হচ্ছে না। এমারজেন্সিতেও রোগীদের রেফার করে দেওয়া হচ্ছে অন্যত্র। দূরদূরান্ত থেকে আসা রোগীরা সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা না পেয়ে আশাহত হয়ে ফিরছেন। এই পরিস্থিতি আর জি কর নিয়ে মাথাব্যথা বাড়ছিল স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের। সমাধানের জন্য কলেজ অধ্যক্ষের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি মেন্টর গ্রুপ তৈরি করে দেন স্বাস্থ্যসচিব।

রবিবার বিষয়টা নিয়ে চার বিধায়ক, এক সাংসদ মোহিত মঞ্চে আন্দোলনকারীদের ডেকে আলোচনায় বসেন। নির্মল মাজি, অতীন ঘোষ সকলেই তাঁদের বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু বরফ গলেনি তাতে।

রবিবার এই ঘটনার পর সোমবার স্বাস্থ্যসচিব নিজে মেন্টর গ্রুপকে বৈঠকে ডাকেন। স্বাস্থ্যভবনেই এদিন বৈঠক করবেন তিনি। প্রয়োজনে আন্দোলনকারীদের সঙ্গেও কথা বলবেন। সবমিলিয়ে জট কাটিয়ে সরকারি হাসপাতালের পরিষেবা দ্রুত ফেরাতে এখন মরিয়া স্বাস্থ্যদপ্তর।

 

 

এদিকে আরজিকর মেডিকেল কলেজের জুনিয়র ডাক্তারদের কর্মবিরতি সঙ্গে একই সময় আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা আন্দোলনে নামে। রাজ্যের সচেতন মহলের অভিযোগ আরজিকর মেডিকেল কলেজের অচলাবস্থা কাটাতে যেভাবে তৎপরতা দেখাচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তর সেই ভাবে তৎপরতা দেখাচ্ছেনা আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অচলাবস্থা কাটাতে। এ নিয়ে রাজ্যের সংখ্যালঘু সমাজের মধ্যে যেমন ক্ষোভ তৈরি হয়েছে একইভাবে রাজ্যের ছাত্র সম্প্রদায়ের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। জানা গেছে ২৫ শে অক্টোবরের মধ্যে সমস্যার সমাধান না হলে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা আরও বৃহত্তর আন্দোলনে নামতে পারে। শুধু তাই নয় আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত পড়ুয়াদের প্রতি সহমত ব্যক্ত করে আন্দোলনে যোগ দিতে পারে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারাও বলে শোনা যাচ্ছে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ