কলকাতা 

মাঝেরহাট ব্রীজ নিয়ে অঞ্জাত পরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এফআইআর পুলিশের, মৃতদের ৫ লাখ, আহতদের ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিবেদক : মাঝেরহাট ব্রীজ রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে যাঁরা ছিলেন তাঁদের বিরুদ্ধে কলকাতা পুলিশ আলিপুর থানায় মামলা রুজু করেছে।  উল্লেখ্য, কলকাতায় মাঝেরহাট ব্রীজের একাংশ গতকাল ভেঙে পড়ার পর ধ্বংসস্তুপ সরানোর কাজ চলছে। সারারাত ধরে এই কাজ চলে। ধ্বংসস্তুপের নীচে হতাহত কেউ আছেন কিনা, গোয়েন্দা কুকুর দিয়ে গতকাল অনেক রাত পর্যন্ত তল্লাশী চালানো হয়। ব্রীজের নিচে শ্রমিকদের বসবাসের ঘরে কেউ আটকে আছেন কিনা তা খুঁজে দেখা হচ্ছে। দুজন সেখানে আটকে পড়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে ।পুলিশ, দমকল, জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর কর্মীরা উদ্ধার কাজে হাত লাগিয়েছেন। নামানো হয়েছে সেনা কমান্ডোদের। ব্রীজ ভাঙার সময় নীচে পড়ে যাওয়া বেশ কয়েকটি গাড়ি, মিনিবাস ও বাইককে ক্রেনের সাহায্যে তুলে নিয়ে আসা হয়। অনেকেই ভাঙা অংশের নিচে চাপা পড়ে যান ।তাদের উদ্ধার করে সিএমআরআই, এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সিটি সিভিল কোর্টের মুখ্য বিচারকের গাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। চালক সামান্য আহত। এই দুই হাসপাতালে ২৪ জনের চিকিৎসা চলছে। শীলপাড়ার বাসিন্দা সৌমেন বাগের এসএসকেএম-এ মৃ্ত্যু হয়েছে। আহত বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। হতাহতের সংখ্যা আরও বেশী হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বেহালা সহ দক্ষিণ-পশ্চিম শহরতলি যাওয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা ডায়মন্ডহারবার রোড বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দক্ষিণ কলকাতার বিস্তীর্ণ এলাকায় গতকাল অনেক রাত পর্যন্ত ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। ঘণ্টার পর ঘণ্টা নিত্যযাত্রীরা পথে আটকে থাকেন। শিয়ালদহ থেকে নিউ আলিপুর এবং বজবজ থেকে মাঝেরহাট পর্যন্ত ট্রেন চলাচল অবশ্য শুরু হয়।

পাহাড় সফররত মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী সেতু ভেঙে পড়ার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রশাসনকে দ্রুত ব্যবস্হা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের দল এই ঘটনার তদন্ত করবে পাহাড় সফর কাটছাঁট করে মুখ্যমন্ত্রী আজই কলকাতায় ফিরে আসছেন। নিহতের পরিবারকে ৫ লক্ষ এবং আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথাও তিনি ঘোষণা করেন। আহতদের চিকিৎসার সব খরচও রাজ্য সরকার বহন করবে বলে তিনি জানান।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং মুখ্যমন্ত্রীকে টেলিফোন করে এই দুর্ঘটনা সম্পর্কে খোঁজ খবর নেন। প্রয়োজনে কেন্দ্রের তরফে সবরকম সহযোগিতার তিনি আশ্বাস দিয়েছেন।

রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী গতকাল দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে একে বড় বিপর্যয় বলে আখ্যা দেন। এর তদন্ত করে দেখা দরকার বলে তিনি মন্তব্য করেন। বিজেপি-র জাতীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা রক্ষণাবেক্ষণে গাফিলতির কারণেই ব্রীজ ভেঙেছে বলে রাজ্য সরকারকে দায়ী করে বলেছেন, তাঁরা এর বিচারবিভাগীয় তদন্ত চান। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী মুখ্যমন্ত্রী এবং পূর্তমন্ত্রীর কাছে এই দুর্ঘটনার জন্য জবাব চেয়েছেন।


শেয়ার করুন
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment