কলকাতা 

অনুসন্ধান এর উদ্যোগে প্রবন্ধ প্রতিযোগিতায় প্রথম রাইহান বড় হয়ে ডাক্তার হতে চায়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আখের আলী সরদার : এবছর শিক্ষক দিবসে সংবর্ধনা সহ নানা অনুষ্ঠানের ফাঁকে অনুসন্ধান কলকাতা আয়োজন করেছিল সারা রাজ্যব্যাপী এক প্রবন্ধ প্রতিযোগিতা। বিষয় ছিল – আমার চোখে শিক্ষক দিবস। হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর আল-আমিন মিশনের একাদশ শ্রেণির ছাত্র রাইহান আহমেদ এই প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করে। রাইহান অষ্টম থেকে আল-আমিন মিশনে পডছে। সম্পূর্ণ শিক্ষার পরিবেশ তার বেড়ে ওঠা। পিতা আব্দুর রহিম গাজী আলিয়া ইউনিভার্সিটির শিক্ষক। মাও শিক্ষিকা। একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন তিনি। একমাত্র সন্তানকে পড়াশোনার যাবতীয় সুযোগ সুবিধা দিয়ে বড় করতে চান তাঁরা। সে ব্যাপারে তাঁরা যথেষ্ট যত্নবান । রাইহানও বেশ সজাগ, পিতা মাতার যোগ্য প্রতিদান দিতে বদ্ধপরিকর সে।

শিক্ষক দিবসে অনুসন্ধানের এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পেরে রাইহান খুব খুশি। স্বাভাবিকভাবেই আরো খুশি সে প্রথম হয়ে। তিনশোর বেশি ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে এই প্রতিযোগিতায়। তাদের সকলকে পিছনে ফেলে রাই়হান প্রথম হয়। শিক্ষক দিবসের অনলাইন অনুষ্ঠানে রাইহান গণ্যমান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে তার প্রবন্ধটি পড়ে শোনায় এবং উচ্চ প্রশংসিত হয়।

ছোট থেকেই রাইহানের প্রিয় বিষয় জীবনবিজ্ঞান। ভবিষ্যতে ডাক্তার হতে চায়। সেই লক্ষ্যেই তার যাবতীয় প্রস্তুতি।

গল্প উপন্যাস পাঠ তার আর এক ভালোবাসা। ছোট থেকেই কবিতা – গল্প লেখায় অভ্যাস গড়ে উঠেছে।খেলাধুলার প্রতিও তার যথেষ্ট টান। বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে মাঠে আর যাওয়া হয় না। তাই একটু আক্ষেপ । তার মতে মেসি ও রোনালদো খুবই ভালো কিন্তু মেসিই বেশি নম্বর পাবে । ফুটবল খেলায় শুধু গোল করলে তো হবে না গোল করার পরিস্থিতি তৈরি করতে হয়। আর এই কারণেই মেসিকে তার এগিয়ে রাখা। এত কিছুর মাঝে ভবিষ্যতে ডাক্তার হয়ে সমাজ গড়ার সাধনায় সে কিন্তু অবিচল।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ