জেলা 

বিডিওকে প্রশ্ন করায় প্রাথমিক শিক্ষককে সাসপেন্ডের হুমকি , এই ঘটনায় ক্ষুদ্ধ শিক্ষক সমাজ,নিন্দায় সরব শিক্ষক সংগঠন

শেয়ার করুন
  • 425
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি :নদিয়ার নাকাশিপাড়ার বিডিও  সমর দত্ত তাঁর অফিসে বসে২৮ অগাস্ট  হলভর্তি মানুষের সামনেই এক তরুণ শিক্ষককে শাসালেন সাসপেন্ড করিয়ে দেবেন বলে হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনার পুরো ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায় নেট দুনিয়ায়। কেউ একজন এই ঘটনার ভিডিওতুলে তা ইন্টারনেটে ছেড়ে দেন।  একটি বহুল প্রচারিত সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ভোটার তালিকা সংশোধনের জন্য নাকাশিপাড়া বিডিও অফিসে একটি প্রশিক্ষণ শিবিরের আয়োজন করা হয়েছিল।

২৮ তারিখ এই প্রশিক্ষণ শুরু হতেই জানিয়ে দেওয়া হয় টানা ২ মাস ধরে কাজ চলবে। শ্বাশত ঘোষ নামে এক তরুণ শিক্ষক জানতে চেয়েছিলেন কোনও এমার্জেন্সি পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে কি, যার জন্য টানা ২ মাস ধরে কাজ? ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজ ১৫ সেপ্টেম্বর শুরু হয়ে ৩১ ডিসেম্বর শেষ হওয়ার কথা। ফলে পুজোর ছুটিও এরমধ্যে পড়ে যাচ্ছে। দুর্গাপুজো বাঙালির সমাজজীবনে সবচেয়ে বড় উৎসব। পুজোর মধ্যে কী হবে কাজের- তা জানতে প্রশিক্ষণ দিতে আসা বিডিও অফিসের লোকেদের জিজ্ঞাসা করেন শ্বাশত। ভোটার তালিকার সংসোধনের কাজ সাধারণত ৬ থেকে ৭ দিন চলে। এরপর ওই শিক্ষক শ্বাশতকে বিডিও-র কাছ থেকে এর উত্তর জেনে আসতে বলে বিডিও অফিসের কর্মীরা।

কিছুক্ষণ পরে তাঁরা বিডিও-কে সঙ্গে করে নিয়ে হলে আসেন। পিছনে চেয়ারে বসেছিলেন শ্বাশত। তাঁকে সামনে ডেকে আনা হয়। দাঁড় করিয়ে তাঁর হাতে মাইক দিয়ে প্রশ্ন করতে বলা হয়। শ্বাশত এবারও একই প্রশ্ন করেন। কিন্তু, নাকাশিপাড়ার বিডিও সমর দত্ত পরিষ্কার জানিয়ে দেন এটা সরকারি নির্দেশ। তাই কোনও প্রশ্ন ছাড়াই তাঁকে কাজ করতে হবে। বিডিও-র এমন উত্তর এবার ক্ষুব্ধ হন শ্বাশত। তিনি সাফ জানিয়ে দেন কাজের বিষয়ে পুরো তথ্য না জানানো হলে তাঁর পক্ষে প্রশিক্ষণ নেওয়া সম্ভব নয়। এরপরই বিডিও মেজাজ হারান। অভিযোগ, তিনি স্পষ্টতই হুঁশিয়ারি দেন শ্বাশতকে।

আচমকাই বিডিও সমর দত্ত চিৎকার বলে ওঠেন, ‘বাই হুইপ’ তিনি এই কাজ করতে বাধ্য। আর প্রশিক্ষণ না নিলে তাঁকে সাসপেন্ড করা হবে। এরপরই বিষয়টি স্কুল পরিদর্শকের অফিসে ফরোয়ার্ড করে দেন তিনি। বিডিও-র এই স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে স্কুল ইনস্পেক্টরকে বিষয়টি জানিয়ে অভিযোগ দায়েরের ঘটনার কড়া নিন্দা করেছে বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠন। বিডিও সমর দত্তের বিরুদ্ধে অহেতুক রূঢ় ব্যবহারের অভিযোগ এই প্রথম নয়। কয়েক মাস আগেই অমিতকুমার মুখোপাধ্যায় নামে এক সরকারি কর্মী সমর দত্তের রূঢ় ব্যবহারের অভিযোগ তুলে ফেসবুকে সরব হয়েছিলেন। তখন পুড়শুড়ার জয়েন্ট বিডিও হিসাবে কাজ করছিলেন তিনি।

আর নদিয়ার নাকাশিপাড়ার প্রাথমিক শিক্ষকের প্রতি বিডিও-র এধরনের আচরনের তীব্র নিন্দা করেছে রাজ্যের শিক্ষক সংগঠনগুলি ।এবিটিপিএ-র রাজ্য সভাপতি সমর চক্রবর্তীও জানিয়েছেন, ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজে অন্য সরকারি কর্মীদেরও অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে। কিন্তু, বারবার প্রাথমিক শিক্ষকদেরকেই এরমধ্যে জোর করে টেনে আনা হয়।
উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার ওয়েলফেয়ার অ্যসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে  বিডিও-র অতি সক্রিয়তার কড়া সমালোচনা করেছেন।


শেয়ার করুন
  • 425
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment