জেলা 

“কমিশন আর তৃণমূল এক হয়ে গেছে। এটা গণতন্ত্রের পক্ষে ভয়াবহ। ২০১৯ সালের নির্বাচন প্রকৃতই নির্বাচন হবে” পঞ্চায়েত মামলায় সুপ্রিম কোর্টের রায় নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে দাবি করলেন বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ

শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে রায় পর শাসক তৃণমূল দলের নেতাদের প্রতিক্রিয়ার পাল্টা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন,”সিঙ্গুর মামলা ছাড়া সব মামলায় তৃণমূল কোর্টে হেরেছে। আমরা তো মানুষের অধিকার নিয়ে কোর্টে গেছিলাম। এটা নীতির প্রশ্ন ছিল। রাজনীতির ময়দানে দেখা যাবে কে কত মায়ের দুধ খেয়েছে। কার পক্ষে মানুষ আছে।” দিলীপ বাবু আরও বলেন, “সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচনের অনুমিত দেয়নি। এটা আমরা আশা করেছিলাম। বিকল্প রাস্তা দিয়েছে। আমরা সেই রাস্তা নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করব।” তিনি বলেন, “এই রায় বিজেপি-র কাছে ধাক্কা নয়। আমরা যেখানে যেখানে প্রার্থী দিতে পারিনি সেখানে ধাক্কা খেয়েছি। বাংলার সাধারণ মানুষ ধাক্কা খেয়েছে। মানুষ লোকসভা নির্বাচনে এর প্রতিশোধ নেবে। তৃণমূল আগে ক্ষমা চাক।” দিলীপ ঘোষের অভিযোগ, “রাজ্য নির্বাচন কমিশন তৃণমূলের হাতে। উৎসাহ দেখে সেটাই বোঝা যাচ্ছে। এটা যেন কমিশনের জয় নয়, তৃণমূলের জয়। কমিশন আর তৃণমূল এক হয়ে গেছে। এটা গণতন্ত্রের পক্ষে ভয়াবহ। ২০১৯ সালের নির্বাচন প্রকৃতই নির্বাচন হবে।”

আজ পঞ্চায়েত মামলার রায়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী আসনে গেজেট নোটিফিকেশন জারির অনুমতি দেয় সুপ্রিম কোর্ট। এর ফলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী আসনগুলিতে আর ভোট হচ্ছে না। সুপ্রিম কোর্ট আরও জানিয়ে দেয়, মনোনয়ন জমা দিতে পারেননি বলে যাঁরা অভিযোগ করেছিলেন, গেজেট নোটিফিকেশন জারির ৩০ দিনের মধ্যে তাঁরা জেলা জজের কাছে আবেদন করতে পারবেন। প্রসঙ্গত, ৭৯ নম্বর ধারায় জেলা জজের কাছে ইলেকশন পিটিশন করা যায়।


শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment