কলকাতা 

মামলার জটে বোর্ড গঠন আটকে থাকা পঞ্চায়েতগুলিতে প্রশাসনিক আধিকারিক বসানোর আদেশনামা জারি করল পঞ্চায়েত দপ্তর

শেয়ার করুন
  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : সুপ্রিম কোর্টে পঞ্চায়েত মামলা আটকে রয়েছে। এই অবস্থায় ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েতের যেসব জায়গায় বোর্ড গঠন করা সম্ভব হয়নি সেইসব পঞ্চায়েত পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হল প্রশাসনিক আধিকারিকদের। জেলা পরিষদে জেলাশাসক, পঞ্চায়েত সমিতি স্তরে মহকুমাশাসক এবং গ্রাম পঞ্চায়েতে বিডিওরা আগামী তিনমাসের জন্য পঞ্চায়েতের দায়িত্ব পালন করবেন। অর্থ খরচের ক্ষমতাও তাদের দেওয়া হয়েছে।

১৭ মে পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফল ঘোষণা হয়েছে। কিন্তু, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ীদের নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে এখনও মামলা চলছে। ফলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন করা যায়নি। এরইমধ্যে পঞ্চায়েতে নির্বাচিত বোর্ডগুলির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। সেই কারণে পঞ্চায়েতের কাজ চালিয়ে যেতে প্রশাসনিক আধিকারিকদের বসানোর সিদ্ধান্ত বলে জানা গেছে। এই মর্মে আজ আদেশনামা জারি করেছে পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দপ্তর। তবে এই সময় সুপ্রিম কোর্টে যদি মামলার নিষ্পত্তি হয়ে পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠনের জট কেটে যায়, সে ক্ষেত্রে নির্বাচিত বোর্ডের হাতে দায়িত্ব তুলে দেওয়া হবে

ইতিমধ্যেই যে সমস্ত ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত মামলার গেরোয় পড়েনি, সেখানে বোর্ড গঠন সেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। দু’সপ্তাহ আগেই এই মর্মে বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছে। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন, ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের এরকম ৩৪ শতাংশ আসনে জটিলতা রয়েছে। বাকি ১৬৩৮টি গ্রাম পঞ্চায়েত, ১২৩টি পঞ্চায়েত সমিতি এবং ৮টি জেলা পরিষদে বোর্ড গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। পঞ্চায়েত দপ্তর থেকে জারি করা বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ওইসব গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি গঠনের কাজ শেষ করতে হবে ১৬ অগাস্ট থেকে ২৯ অগাস্টের মধ্যে। ৩১ অগস্ট থেকে ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পঞ্চায়েত সমিতিগুলির বোর্ড গঠনের প্রক্রিয়া শেষ হবে। অন্যদিকে, জেলা পরিষদগুলির বোর্ড গঠন ১০ সেপ্টেম্বর থেকে ১৩ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সেরে ফেলতে হবে।


শেয়ার করুন
  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment