কলকাতা 

কেন্দ্রের কাছ থেকে ৩৩৩০৪ কোটি টাকা রাজ্য পায়, কেন্দ্র তা দিচ্ছে না অভিযোগ মমতার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : তৃতীয় তৃণমূল সরকার বিধানসভায় প্রথম বাজেট পেশ করার পর রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিকদের কাছে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেয়। তিনি রীতিমতো হিসাব কষে দেখিয়েছেন কেন্দ্রের কাছ থেকে রাজ্য সরকার ৩৩৩০৪ কোটি টাকা পায়। তা সত্ত্বেও রাজ্য সরকারকে একটি পয়সাও কেন্দ্র দিচ্ছে না। উপরন্তু প্রতিদিন নিয়ম করে জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়ে সাধারণ মানুষের উপর মূল্যবৃদ্ধির বোঝা চাপাচ্ছে কেন্দ্র।

বুধবার সাংবাদিক সম্মেলন থেকে রাজ্যের ভবিষ্যত পরিকল্পনা, বাজেট নিয়ে বক্তব্য রাখেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখান থেকে কোভিড টিকা, জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি-সহ রাজ্যকে বঞ্চনার অভিযোগ করেন তিনি। তাঁর কথায়, “রাজ্যকে ৬০ হাজার কোটি টাকা থেকে বঞ্চিত করেছে কেন্দ্র। এখনও ৩৩ হাজার ৩১৪ কোটি টাকা পাই। এত বঞ্চনার পরও রাজ্যের জিডিপি বেড়েছে।” একইসঙ্গে তাঁর অভিযোগ, “যশের ক্ষতিপূরণও মেলেনি। রাজ্যকে বঞ্চনা করা হয়েছে।”

কোভিড পরিস্থিতি নিয়েও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, “টিকা তো বাজারে এসে গিয়েছিল, দ্বিতীয় ঢেউ আসার আগে কেন দেশবাসীকে টিকা দেওয়া হল না? এখন তো বিরোধী রাজ্যগুলিকে কম টিকা দেওয়া হচ্ছে।” একইসঙ্গে তাঁর প্রশ্ন, “কেন্দ্রীয় বাজেটে কোভিড টিকার জন্য ৩৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। এছাড়াও ছিল পিএম কেয়ারস। সেই টাকা কোথায় গেল?”

গত মে মাস থেকে ৮ বার পেট্রোপণ্যের দাম বেড়েছে। শুধুমাত্র জুন মাসেই মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে ৬ বার। আর গত এক সপ্তাহে ৪ বার দাম বেড়েছে পেট্রোপণ্যের। সবমিলিয়ে আমজনতার নাভিশ্বাস দশা। মমতার কথায়, পেট্রোপণ্যের দামবৃদ্ধি মানুষের সহ্যক্ষমতা ছাড়িয়েছে। তবে স্রেফ পেট্রোপণ্যের দামবৃদ্ধিই নয়, নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর মূল্যবৃদ্ধি নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবারের বাজেটে পরিবহন ব্যবসায়ীদের জন্য খানিকটা হলেও সুখবর এনে দিয়েছে তা হল রোড ট্যাক্স এবং অন্যান্য ট্যাক্স আগামী ৩১ শে ডিসেম্বর পর্যন্ত মুকুব করা হয়েছে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ