বিনোদন, সংস্কৃতি ও সাহিত্য 

‘দিলীপ সাহাবকে ছাড়া তো আমার জীবন অর্থহীন, আমি কিছু ভাবতেই পারছি না’ : সায়রা বানু

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নাজমা ইয়াসমিন : সায়রা বানু-দিলীপ কুমার জুটি বলিউডে সবচেয়ে জনপ্রিয় রোমান্টিক জুটি বলে আজও চিহ্নিত হয়ে থাকে । আজ বুধবার সকালে চিরঘুমের দেশে চলে গেলেন দিলীপ কুমার । মৃত্যুকারে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর । আজ সকাল ৮টা নাগাদ মুম্বইয়ে হিন্দুজা হাসপাতালে মৃত্যু হল দিলীপ কুমারের। দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন ।

সায়রা বানু ছিলেন দিলীপ কুমার অন্তপ্রাণ । শুধুমা্ত্র দিলীপ কুমারকে পাওয়ার জন্যই তিনি নাকি অবিনয়ে এসেছিলেন । সেকথা পরবর্তীকালে সায়রা বানু বারবার বলতেন । তাই বয়সে ২২ বছরের ছোট হয়েও দিলীপ কুমার জীবন সঙ্গী করতে তিনি রাজি হয়ে গিয়েছিলেন । বয়সের কারণে দিলীপ রাজি হতে চাননি । কিন্ত সায়রার অমর প্রেম , জেদের কাছে হার মানতেই সেই সময়কার প্রখ্যাত অভিনেতা দিলীপ কুমার । ১৯৬৬ সালে দুজন বিয়ে করেন । সেই বিচারে ৫৫ বছর তাঁদের দাম্পত্ত্যজীবন । দীর্ঘ পাঁচ দশকের সঙ্গীকে একা রেখে না-ফেরার দেশে চলে গেলেন দিলীপ কুমার, এই দম্পতির কোনও সন্তান নেই। পরস্পরকে আগলে রাখতেন দুজনে, সম্পর্কে চড়াই উতরাই এসেছে ঠিকই- সব বাধা বিপত্তি পেরিয়ে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দিলীপ কুমারকে আগলে রেখেছিলেন সায়রা বানু। স্বামীর মৃত্যুতে স্বভাবতই শোকস্তব্ধ সায়রা।

‘ভগবান আমার বেঁচে থাকার কারণটাই কেড়ে নিল… সাহাবকে ছাড়া তো আমার জীবন অর্থহীন, আমি কিছু ভাবতেই পারছি না… দয়া করে সকলে প্রার্থনা করুন’, এদিন সকালে চিকিত্সদের কাছ থেকে দিলীপ কুমারের মৃত্যু সংবাদ শোনার পর এটাই ছিল সায়রা বানুর প্রথম প্রতিক্রিয়া। ডাঃ জালিল পারেকর সর্ব প্রথম এই দুঃসংবাদ জানান দিলীপ জায়াকে।‘ভগবান আমার বেঁচে থাকার কারণটাই কেড়ে নিল…’ নিজের মনে মনে এই লাইনই বারবার উচ্চারণ করে চলেছিলেন দিলীপ-জায়া।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ