কলকাতা 

সোমনাথের স্মরণ সভার পর বাজপেয়ীর স্মরণ সভাতেও ডাক পাচ্ছেন মমতাসহ সব রাজনৈতিক দল, রাজনৈতিক সৌজন্যে নজীর গড়তে চলেছে বাংলা

শেয়ার করুন
  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের স্মরণ সভায় সিপিএম প্রভাবিত সংগঠন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর এবার রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বও অটলবিহারী বাজপেয়ীর স্মরণ সভায় মমতাকে আমন্ত্রণ জানাতে চলেছেন বলে জানা গেছে। কারণ দেশের রাজনীতিতে তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে বিজেপির এখন অহি-নকুল সম্পর্ক থাকলেও  বাজপেয়ীর প্রতি নমনীয় মনোভাব আজও অটল রেখেছে তৃণমূল, এবার রাজ্য বিজেপিও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে সৌজন্যের সেই রাজনীতিকে হাতিয়ার করতে চাইছে।

সেই লক্ষ্যেই মমতাকেও আমন্ত্রণ জানানো হতে পারে অটলবিহারী বাজপেয়ীর স্মরণসভায়।  এছাড়াও অটলবিহারী বাজপেয়ীর মন্ত্রিসভায় পূর্ণমন্ত্রী ছিলেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তাই নয়, অটলবিহারী বাজপেয়ীর সঙ্গে একেবারে অন্যরকম সম্পর্ক ছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। তার প্রেক্ষিতেই কলকাতায় এসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালীঘাটের বাড়িতেও গিয়েছিলেন বাজপেয়ী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মায়ের পা ছুঁয়ে প্রণাম করেছিলেন। এহেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে না আমন্ত্রণ জানালে কলকাতায় বাজপেয়ীর স্মরণসভা অপূর্ণ রয়ে যাবে বলে মনে করছে রাজ্য বিজেপি। সেই কারণেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানোর ভাবনা রয়েছে দিলীপ ঘোষদের। আর এই আমন্ত্রণের মাধ্যমে সৌজন্যের রাজনীতির তাস খেলতে চাইছে বিজেপি।বিজেপির ব্যাখ্যা, শাসক বা বিরোধী- সবার জন্যই বিশেষ কদর ছিল অটলবিহারী বাজপেয়ীর।

একদিকে সোমনাথের স্মরণ সভায় বামেরা সব রাজনৈতিক দলকে ডাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এমনকি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানো হবে বলে জানা গেছে। আবার অটলবিহারী বাজপেয়ীর স্মরণসভাতে রাজ্য বিজেপি সব রাজনৈতিক আমন্ত্রণ জানাতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে । যদি সত্যিই বাজপেয়ীর স্মরণ সভায় রাজ্যের সব রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়, তাহলে তা রাজনৈতিক সৌজন্যে সমগ্র দেশে নজীর স্থাপন করবে বাংলা।


শেয়ার করুন
  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment