দেশ 

চিরঘুমের দেশে চলে গেলেন দেশের অন্যতম সফল প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী

শেয়ার করুন
  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : চলে গেলেন অটল বিহারী বাজপেয়ী। বিকেল ৫টা বেজে ৫ মিনিটে  এইমসে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। বাজপেয়ীর মৃত্যু সংবাদে গভীর শোকপ্রকাশ করে টুইট করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী-দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত অসুখে ভুগছিলেন অটল বিহারী বাজপেয়ী। ৯ সপ্তাহ ধরে এইমস-এ ভর্তিছিলেন তিনি। মঙ্গলবার থেকে তাঁর শারীরিক পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়। ফুসফুস ও অন্ত্রে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত বাজপেয়ীর একটি কিডনি দীর্ঘদিন ধরেই বিকল। শুধুমাত্র একটি কিডনি কাজ করছিল। এই পরিস্থিতিতে  পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে ওঠে। তবে চেষ্টার কোনও কসুর বাকি রাখেননি চিকিৎসকরা।

গত ১১ জুন থেকে তিনি কিডনি, বুক এবং মূত্রনালীতে সংক্রমণ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।এইমসের তরফে মেডিক্যাল বুলেটিনে জানানো হয়েছে, গত ৩৬ ঘণ্টায় তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। তাঁকে লাইফ সাপোর্ট সিস্টেমে রাখা হয়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত সব চেষ্টাই বিফল হয়।

বুধবার দুপুর থেকেই অটলবিহারী বাজপেয়ীর শারীরিক অবস্থা অত্যন্ত সঙ্কটজনক হতে শুরু করে। বুধবার দুপুরে তাঁকে দেখতে হাসপাতালে যান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। যান কেন্দ্রীয় বস্ত্রমন্ত্রী স্মৃতি ইরানি, কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযুষ গয়ালও। গত কয়েক মাসে তাঁর শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিতে দেশের হেভিওয়েটদের ভিড় নিয়মিত লেগে থাকত এইমসে। বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধী-সহ অনেকেই গত কয়েক দিন ধরে নিয়মিত খোঁজখবর নিচ্ছিলেন তাঁর শারীরিক অবস্থার।

১৯৯৬, ১৯৯৮, ১৯৯৯— তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন অটলবিহারী বাজপেয়ী। প্রথম দফায় তেরো দিন, দ্বিতীয় দফায় তেরো মাস আর তৃতীয় দফায় পূর্ণ সময়ের জন্য প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশের দায়িত্বভার সামলেছেন তিনি। ২০১৪ সালে মোদীর সরকার ক্ষমতায় আসার পরে বাজপেয়ীকে ভারতরত্ন দেওয়া হয়।

 


শেয়ার করুন
  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment