কলকাতা 

রাজীব গান্ধী অসমে বিদেশী চিহ্নিতকরণ থেকে শুরু করে অসমীয়া ভাষা ও সংস্কৃতির বিকাশের জন্য যা করেছেন তা দেশের কোন প্রধানমন্ত্রী করেননি : সরদার আমজাদ আলী

শেয়ার করুন
  • 11
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সেখ ইবাদুল ইসলাম : সরদার আমজাদ আলী প্রাক্তন সাংসদ । কংগ্রেস নেতা । কলকাতা হাইকোর্টের বর্ষীয়ান দুঁদে আইনজীবী । স্পষ্ট বক্তা । কিন্ত সমাজ দেশ সর্ম্পকে তাঁর রয়েছে অগাধ পান্ডিত্য । সম্প্রতি অসমের জাতীয় নাগরিক পঞ্জি ইস্যুতে সমগ্র দেশ জুড়ে হইচই পড়েছে। আমাদের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৪০ লক্ষ বাঙালির নাম বাদ পড়ে যাওয়া নিয়ে ইতিমধ্যেই উস্মা প্রকাশ করেছেন ।

অন্যদিকে অমিত শাহ কলকাতায় এসে বলেছেন, রাজীব গান্ধীর আমলে শুরু হয়েছিল এই নাগরিক পঞ্জি । তিনি করেননি, বিজেপি সরকার করেছে বলে দাবি করেছেন অমিত শাহ । তিনি আরও দাবি করেছেন অনুপ্রবেশকারীদের বিতাড়িত করা হবে । শরণার্থী বা উদ্বাস্তদের এখানে নাগরিকত্ব দেওয়া হবে । এই প্রেক্ষাপটেই বাংলার জনরব নিউজ পোর্টালে মুখ খুলেছেন বিশিষ্ট চিন্তাবিদ সরদার আমজাদ আলী ।

প্রশ্ন : অসমের জাতীয় নাগরিক পঞ্জি থেকে ৪০ লক্ষ বাঙালির নাম বাদ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ । অমিত শাহ কলকাতায় এসে বলেছেন এটা রাজীব গান্ধী শুরু করেছিলেন —?

সরদার আমজাদ আলী : রাজীব গান্ধী কী শুরু করেছিলেন ? রাজীব গান্ধীর আমলে অসম চুক্তি হয়েছিল। সেই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিলেন প্রফুল্ল মহন্ত । যিনি অসমের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন । তিনি তো দু দফায় ১১ বছর ক্ষমতায় ছিল। তবে এটা অমিত শাহদের মানতে হবে । রাজীব গান্ধী যা করেছেন অসমের জন্য তা কেউ করতে পারবে না।অসম চুক্তি মত অসমীয়াদের দাবি ছিল তাদের কৃষ্টি-সংস্কৃতি বিপন্ন । তা সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা করতে হবে । রাজীব গান্ধীর উদ্যোগে অসমের তেজপুরে এবং শিলচরে দুটি কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় করেছে তৎকালীন কেন্দ্র সরকার। শুধু তাই নয়, একটি অসম ভাষা-সংস্কৃতি কেন্দ্র করেছে রাজীব গান্ধী। অসম চুক্তিতে অসমীয়াদের দাবি ছিল সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ হচ্ছে তা বন্ধ করতে হবে। রাজীব গান্ধীর উদ্যোগে ৭৯৭ কিমি সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়া হয়েছিল । যার জন্য কেন্দ্র সরকার খরচ করেছিল ১৩৩৪ কোটি টাকা।

অসম চুক্তিতে অসমীয়াদের দাবি ছিল বিদেশীদের বা অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করার জন্য বিশেষ ট্রাইবুন্যাল গঠন করতে হবে । তিনি ১৯৮৩-র আইন সংশোধন করে ১৬টি ট্রাইবুন্যাল গঠন করেছিলেন । সেই ১৬ টি ট্রাইবুন্যাল ২৪,৩৭৬ জনকে বিদেশী বলে চিহ্নিত করেছিল । এখন প্রশ্ন হচ্ছে ওই ট্রাইবুন্যাল যাদেরকে এদেশের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল তাদের অনেকের নাম জাতীয় নাগরিক পঞ্জির তালিকায় বাদ পড়েছে । এটা কেন হল? এর জন্য কী রাজীব গান্ধী দায়ী ? প্রফুল্ল মহন্তরা ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে কেন বিদেশী নাগরিকদের চিহ্নিত করতে পারলেন ?


শেয়ার করুন
  • 11
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment