কলকাতা 

উচ্চ-মাধ্যমিক স্কেলে বেতন দেওয়ার দাবিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের মহামিছিল, নবান্নে দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি পেশ, বিধানসভায় বিরোধী দলের নেতাদেরও স্মারকলিপি দিল আন্দোলনকারী শিক্ষকরা, দ্রূত সমস্যার সমাধানের ইঙ্গিত শিক্ষা দপ্তরের

শেয়ার করুন
  • 97
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : অবিলম্বে প্রাথমিক শিক্ষক-শিক্ষিকাদের উচ্চ-মাধ্যমিক স্কেল-এ বেতন চালু করার দাবিতে মঙ্গলবার কলকাতায় মহামিছিল করলো শিক্ষকরা। উস্তি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স অ্যসোশিয়েশন নামে এক অরাজনৈতিক শিক্ষক সংগঠনের ডাকে মঙ্গলবারের মহামিছিলে হাজার হাজার শিক্ষক -শিক্ষিকা উপস্থিত ছিলেন । এদিন সকাল থেকেই এই অরাজনৈতিক শিক্ষক সংগঠনের ডাকে সুবোধ মল্লিক স্কোয়ারে হাজির হন আন্দোলনকারী শিক্ষকরা। সেখান থেকে মিছিল করে রানী রাসমনি রোডের সভায় যোগ দেন,এখানে বেলা ১২ থেকে ৩টে পর্যন্ত অবস্থান বিক্ষোভে সামিল হন আন্দোলনকারী শিক্ষকরা। এদিন প্রাথমিক শিক্ষকদের এই আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছেন রাজ্যের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদরা। তাই এদিনের মিছিলে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ আনন্দদেব মুখোপাধ্যায়, অশোকনাথ বসু সিদ্ধার্থ দত্ত সহ অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তিও এই আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে মিছিলে পা মিলিয়েছেন।

এই মহামিছিল ও সমাবেশের একটি মাত্র দাবি ছিল৷ ২০১২ সালের ২৩ মার্চ ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ টিচার্স এডুকেশন একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে৷ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, প্রাথমিক শিক্ষক হতে গেলে ন্যূনতম ৫০ শতাংশ নম্বর নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ এবং দু’বছরের ট্রেনিং থাকতে হবে৷ এই শর্তাবলীর ভিত্তিতে অনেক প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ করা হয় এই রাজ্যে৷ আর যাঁদের এই যোগ্যতা ছিল না তাঁরা এনসিটিই-র নিয়ম অনুযায়ী যোগ্যতা অর্জন করেন৷

Advertisement

অভিযোগ, এনসিটিই নিয়ম মেনে যোগ্যতা অর্জন করলেও পশ্চিমবঙ্গে শিক্ষকদের বেতন কাঠামো মাধ্যমিক বা অষ্টম শ্রেণি পাশ যোগ্যতা অনুযায়ী তাদের বেতন দেওয়া হয়। মিছিলে অংশগ্রহণকারী শিক্ষকদের দাবি, যেখানে যোগ্যতা বাড়ানো হল, সেখানে যোগ্যতা অনুযায়ী বেতনও বাড়ানো হোক৷

দেশের প্রতিটি রাজ্যেই এনসিটিই-র নিয়ম মেনে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ করা হয়৷ বেশিরভাগ রাজ্যেই তাঁদের বেতন দেওয়া হয় কেন্দ্রীয় সরকারের পিআরটি স্কেল অনুযায়ী৷ কেন্দ্রীয় সরকারের ষষ্ঠ কমিশনের বেতন কাঠামো অনুযায়ী পিআরটি স্কেলে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন হল ৪২০০ টাকা গ্রেড পে সহ ৯৩০০ থেকে ৩৪৮০০ টাকা৷ এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম হল শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গ৷ কারণ, রাজ্যে এখনও পর্যন্ত প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন দেওয়া হয় মাধ্যমিক যোগ্যতার ৷ এখানকার প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন ২৬০০ টাকা গ্রেড পে সহ ৫৪০০ থেকে ২৫২০০ টাকা৷ আর গত বছর নভেম্বর মাসের সপ্তম পে কমিশন অনুযায়ী, এই বেতনের পার্থক্য আরও বেশি৷

তাই অবিলম্বে সংশোধিত বেতন কাঠামো চালুর দাবিতে উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের (উপ্টা) পক্ষ থেকে ডাক দেওয়া হয়েছিল এই বিশাল মহামিছিলের৷ সেই ডাকে কোনও শাসক দলের শিক্ষক সংগঠনের সাড়া না মিললেও, উপস্থিত হয়েছিলেন বহু বামপন্থী শিক্ষক সংগঠন৷ মিছিলে অংশগ্রহণ করেছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদরাও৷ তাঁদের মধ্যে ছিলেন আনন্দদেব মুখোপাধ্যায়, অশোকনাথ বসু, সিদ্ধার্থ দত্ত সহ আরও অনেকে৷ উপ্টার সম্পাদিকা পৃথা বিশ্বাস এই মিছিল ও সমাবেশে নেতৃত্ব দেন৷

এদিন আন্দোলনকারীদের নবান্নে গিয়ে শিক্ষা দপ্তরের প্রধান সচিবের সঙ্গে দেখা করে তাদের দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি তুলে দেন। এবং তাদের সপক্ষে যুক্তিপূর্ণ ব্যাখ্যা আধিকারিকদের সামনে আন্দোলনকারীদের প্রতিনিধিরা তুলে ধরেন। নবান্ন সূত্রে জানা গেছে প্রাথমিক শিক্ষকদের এই আন্দোলনের প্রতি সরকার সহানুভুতিশীল তা দ্রূত তাদের দাবি মেনে নেওয়া হবে বলে জানা গেছে। এই সংগঠনের পক্ষ থেকে এদিন বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান, বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী এবং বিজেপির রাজ্য সভাপতি ও বিধায়ক দিলীপ ঘোষেকেও তাদের দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি তুলে দেওয়া হয়। বিরোধী দলের সব কটি রাজনৈতিক দলই এই দাবি নায্য বলে স্বীকার করেছে।

ছবি : ফাইল চিত্র


শেয়ার করুন
  • 97
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment